স্বামীর আদর্শকে ভুলতে বসেছেন খালেদা জিয়া

গত ১৯ জানুয়ারি ছিলো বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী’। তবে দিনটিতে দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত ক্রোড়পত্রে দলের প্রতিষ্ঠাতা ও স্বামীকে নিয়ে কোনো বাণী দেননি বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। বিষয়টি নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গনে নানা আলোচনা চলছে। প্রশ্ন উঠেছে, তবে কী’ স্বামীর আদর্শকেও ভুলতে বসেছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন?

দলীয় সূত্র মতে, ১৯ জানুয়ারি বিএনপির পক্ষ থেকে দৈনিক মানবজমিন পত্রিকায় একটা ক্রোড়পত্র ছাপা হয়েছে। সেখানে বিএনপির ভা’রপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান এবং মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইস’লাম আলমগীরের বাণী থাকলেও খালেদা জিয়ার কোনো বাণী প্রকাশ করা হয়নি। এটা পরিক’ল্পিত নাকি অনিচ্ছাকৃত ভুল, তা নিয়ে চলছে নানা গুঞ্জন।

বিএনপির একটি অংশের দাবি, দলীয় প্রধান হিসেবে খালেদা জিয়ার বাণী দেয়াটা অ’ত্যাবশ্যক ছিলো। দলীয় প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে জিয়াউর রহমানের জন্মবার্ষিকী’তে তাকে বাণীর মাধ্যমে স্ম’রণ না করাটা খুবই দুঃখজনক। একই সঙ্গে অশনি সংকেতও। কারণ, পরবর্তী প্রজন্মও তারই দেখানো পথে হাঁটবে। এছাড়া আরেকটি দিক দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হবে বিএনপি। সেটি হলো ক্রোড়পত্রের মাধ্যমে তৃণমূলে বার্তা যাবে, বিএনপির দলীয় কার্যক্রমে খালেদার কোনো ভূমিকা নেই, সম্পৃক্ততা নেই। তিনি থেকেও না থাকার মতো।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলটির নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের এক নেতা বলেন, এর পেছনে অন্য গল্পও থাকতে পারে। যেমন, খালেদা মাইনাস, তারেক ইন- এমনটা। তবে সব কিছু ছাপিয়ে এটা সত্য, খালেদার বাণী প্রকাশটা যৌক্তিক ছিল। কিন্তু সেটা যে কারণেই হোক, হয়নি।

রাজনৈতিক বিজ্ঞজনদের মতে, এসব হয়েছে পরিকল্পনামাফিক। পরিকল্পনার বাইরে কিছুই হয়নি। খালেদা হয়তো চাইছেন না, তার পৌঢ় নেতৃত্বে দল চলুক। তাই তিনি বাণী দেননি। অথবা এমনটা হতে পারে তারেকের পীড়াপীড়িতেই তিনি বাণী প্রকাশ থেকে বিরত থেকেছেন। তবে বিষয় যাই হোক, এতটুকু পরিষ্কার যে বিএনপিতে খালেদার প্রয়োজন ফুরিয়ে আসছে। এ কারণেই তার স্নেহধন্য নেতাকর্মীরা হচ্ছেন তারেকমুখী।

শেয়ার করুন

Check Also

সেতুমন্ত্রীকে রাজাকার পরিবারের সদস্য বললেন সাংসদ, কাদের মির্জা অনশনে

মুক্তিযুদ্ধে পরিবারের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলায় সংসদ সদস্য একরামুল চৌধুরীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবিতে আমরণ …