স্কুল খুলেই আলমারিতে পাওয়া গেলে নির্বাচনের অসংখ্য ব্যালট পেপার

স্কুল খুলেই আলমারিতে পাওয়া গেলে নির্বাচনের অসংখ্য ব্যালট পেপার

করোনার প্রদুর্ভাব কিছুটা কমে যাওয়ায় দীর্ঘদিন পর বিদ্যালয় খোলার প্রথমদিন রোববার দুপুরে স্টিলের আলমিরায় কলম খুঁজতে গিয়ে দুইশ ব্যালট পেপারের মুরিপত্র খুজে পেয়েছে বিদ্যালয়টির দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী মিন্টু বয়াতী।এ ঘটনায় ওই এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। ঘটনাটি বরিশালের গৌরনদী উপজেলার বাঘমারা বড় দুলালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের।

জানা গেছে, উদ্ধার হওয়া মুড়িপত্রগুলো সদ্য সমাপ্ত হওয়া (২১ জুন) গৌরনদী উপজেলার বার্থী ইউনিয়ন পরিষদের ২নং ওয়ার্ডের সাধারণ ও সংরক্ষিত ওয়ার্ড নির্বাচনের।
ওই বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আব্দুল লতিফ খান বলেন, রোববার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে স্কুলের দপ্তরি মিন্টু বয়াতী তালা বিহীন আলমিরা থেকে একটি কলম আনতে গিয়ে ব্যালটের দুইটি মুড়িবই দেখতে পান। বিষয়টি আমাকে জানালে তাংক্ষনিক আমি আলমিরা থেকে ব্যালটের ২টি মুরিবই বের করে এনে দেখি, ইউপি নিবাচনের সাধারন সদস্য (পুরুষ মেম্বার) পদের প্রতীকের একশত ব্যালটের ১টি মুরিবই (১বান্ডিল) ও সংরক্ষিত সদস্য (মহিলা মেম্বার) পদের প্রতীকের একশত ব্যাটটের ১টি মুরিবই (এক বান্ডিল)।

মেম্বার প্রতীকের ওই ২ শত ব্যালটে সীল ও টিপসই থাকলেও কোন ব্যালটে সহকারী প্রিজাইডিং অফিসারের স্বাক্ষর নেই। এদিকে, ব্যালটের ২টি মুরিবই’র শেষের ২টি পাতার প্রতীকের ব্যালট না ছেড়া রয়েছে। তাৎক্ষনিক বিষয়টি স্কুল ম্যানেজিং কমিটিসহ শিক্ষা অফিসারকে জানাই।

অনুষ্ঠিত বার্থী ইউপি নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা রিটানিং অফিসার ও উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. মামুনুর রহমান বলেন, মেম্বার প্রতীকের ব্যালটের ২টি মুরিবই স্কুলে পাওয়ার বিষয়টি আমি সাংবাদিকদের মাধ্যমে জানতে পেরেছি। উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সাথে আলাপ করে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। তদন্ত কমিটির তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বিপিন চন্দ্র বিশ্বাস জানান, খবর পেয়ে তিনি বিষয়টি উপজেলা নির্বাচন অফিসারকে তদন্ত করার নির্দেশ দিয়েছেন।ওই ওয়ার্ডের পরাজিত ইউপি সদস্য প্রার্থী খায়রুল আহসান খোকন বলেন, নির্বাচনের শুরু থেকেই অনিয়মের বিষয়টি কর্তৃপক্ষকে অবহিত করেও কোন সুফল পাওয়া যায়নি। এখন ব্যালট পেপারের মুড়িপত্র পাওয়ায় নির্বাচনে অনিয়ম হওয়ার বিষয়টি পরিস্কার হলো।

তিনি আরও বলেন, তাদের ইউনিয়নের রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্বপালন করা ও কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিসাইডিং অফিসারের যোগসাজসে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ওই দুইশ ব্যালটের ভোট কারচুপি করে বিজয়ী প্রার্থীদের পক্ষে গোপনে বাক্সে ঢুকিয়ে দেওয়া হয়েছে। একই অভিযোগ করেছেন, পরাজিত সংরক্ষিত সদস্য প্রার্থী শিপ্রা রানী। তারা বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি করেছেন।

উল্লেখ্য, ইউপি নির্বাচনের প্রথম ধাপে গত ২১ জুন গৌরনদী উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে ইউপি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এ নির্বাচনে উপজেলা ৭টি ইউনিয়নের মধ্য বার্থী ইউপিসহ বিনা প্রতিদ্বন্দিতায় আ’লীগ মনোনীত ৬ ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। বার্থী ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড থেকে সাধারণ সদস্য হিসেবে সোবাহান হাওলাদার ও সংরক্ষিত সদস্য হিসেবে শাহানাজ বেগম নির্বাচিত হয়েছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *