শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে হারের পর যা বললেন আফগান অধিনায়ক

এমন অবিশ্বাস্য ম্যাচও জিতে কেউ! পুরো ম্যাচের পরতে পরতে উত্তেজনায় ঠাসা। শেষ ওভারে মোস্তাফিজুর রহমান কী বোলিং উপহার দিলেন! মাত্র ৮ রান প্রয়োজন আফগানদের। সেখানে তিনি রান দিলেন কেবল ৪টি। নিলেন একটি উইকেট। অবশেষে মাত্র ৩ রানের অবিশ্বাস্য, শ্বাসরূদ্ধকর এক জয়ে এশিয়া কাপের ফাইনাল খেলার আশা টিকে থাকলো বাংলাদেশের।

পেন্ডুলামের মত দুলছিল ম্যাচটা। বলের সঙ্গে রানের ব্যবধান ধীরে ধীরে কমিয়ে আনছিল আফগানিস্তানের ব্যাটসম্যানরা। প্রথমে মোহাম্মদ শাহজাদ, পরে আসগর আফগান এবং হাশমতউল্লাহ শহিদি। সর্বশেষ আফগান ব্যাটিংয়ের হাল ধরে অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার মোহাম্মদ নবি। বাংলাদেশের বোলারদের একের পর চেষ্টা ব্যর্থ করে দিচ্ছিলেন তারা। মাশরাফি বিন মর্তুজা মাঝে দু’বার সাফল্যের দেখা পেলেও অন্যরা হচ্ছেন ব্যর্থ।

৪৯তম ওভারের দ্বিতীয় বলে সাকিব আল হাসানকেও বিশাল এক ছক্কা হাঁকালেন মোহাম্মদ নবি। ম্যাচটা একেবারে হাতের মুঠোয় নিয়ে এসেছিলেন এই ছক্কা মেরে। কারণ তখন ১০ বলে প্রয়োজন হয় মাত্র ১২ রান। এমন মুহূর্তে সাকিবকে আরেকটি ছক্কা মারতে গিয়ে লং অফে নাজমুল হোসেন শান্তর হাতে ধরা পড়েন নবি।

শেষ ওভারে প্রয়োজন ৮ রান। বোলার মোস্তাফিজুর রহমান। ব্য্যাটসম্যান রশিদ খান। প্রথম বলেই নিলেন দুই রান। ৫ বলে প্রয়োজন ৬ রান। দ্বিতীয় বলেই মোস্তাফিজের বলটিতে খুব সহজে ক্যাচ তুলে দিলেন রশিদ খান। নিজের বলে নিজেই ক্যাচ ধরলেন মোস্তাফিজ।

ব্যাটসম্যান হিসেবে মাঠে নামেন গুলবাদিন নাইব। ৪ বলে প্রয়োজন ৬ রান। তৃতীয় বলে পায়ে লাগিয়ে একটি রান নেন। সিনওয়ারি। ক্যাচের আবেদন করলেও আম্পায়ার তাতে সাড়া দেননি। চতুর্থ বলে কোনো রান দিলেন না। পঞ্চম বলে একটি লেগ বাই রান নিলেন গুলবাদিন নাইব। শেষ বলে প্রয়োজন ৪ রান। ব্যাটসম্যান সামিউল্লাহ সেনওয়ারি। শেষ বলে মোস্তাফিজ আর রানই দিলেন না। শিনওয়ারি ব্যাটে বলই লাগাতে পারলেন না। বরং, তার হাত থেকে ব্যাটই ছুটে চলে যায়। ৩ রানের অবিশ্বাস্য এক জয় পেয়ে যায় বাংলাদেশ।

ম্যাচ শেষে আফগান অধিনায়ক বলেন, ‘প্রথমেই অভিনন্দন জানাই বাংলাদেশকে এমন একটি জয়ের জন্য। আমাদের জয়ের জন্য ৬ বল থেকে ৮ রানের প্রয়োজন ছিল। এটা মোটেও কঠিন ছিল না যখন আমাদের দলের অন্যতম একজন ব্যাটসম্যান নায়িব ব্যাটিং করছিল। মুস্তাফিজ দূর্দান্ত বোলিং করেছেন। হয়তো আমাদের শেষের ওভারে কিছু ডাবল কিংবা সিঙ্গেল রানের উপর ভর করা দরকার ছিল। যাই হোক আমরা অনেক কিছু শিখেছি এই টুর্নামেন্টে কিভাবে বড় দলগুলোর বিপক্ষে লড়তে হয়।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.