শিল্পী সমিতির চেয়ারে বসলেন জায়েদ খান

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পদে শেষ পর্যন্ত জায়েদ খানই থাকলেন। বুধবার (২ মার্চ) তার প্রার্থিতা বৈধ বলে রায় দিয়েছেন হাইকোর্ট। এর ফলে এখন থেকে তিনিই সমিতির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করবেন।

রায় পাওয়ার পর বিকেলেই এফডিসিতে যান জায়েদ। কিন্তু সমিতিতে প্রবেশ করতে পারছিলেন না। কারণ সেখানে তালা দেওয়া। মাঝে আপিল বোর্ডের ঘোষণায় জয়ী ঘোষিত নিপুণ সেখানে নতুন তালা লাগিয়েছিলেন।

এফডিসিতে গিয়ে বুধবার সন্ধ্যায় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন জায়েদ খান। সমিতি ও রায় সম্পর্কিত অনেক কথা বলেন। এক পর্যায়ে জানতে পারেন, সমিতির কার্যালয়ের তালা খোলা হয়েছে। এরপর তিনি শিল্পী সমিতিতে প্রবেশ করে সাধারণ সম্পাদকের চেয়ারে বসেন। জায়েদ জানালেন, আজ থেকেই তিনি নিজের কার্যক্রম শুরু করেছেন।

এ সময় জায়েদ খানের সঙ্গে ছিলেন কালজয়ী অভিনেত্রী সুচরিতা, অরুনা বিশ্বাস, তরুণ চিত্রনায়ক জয় চৌধুরীসহ শিল্পী সমিতির কয়েকজন সদস্য।

সমিতির কার্যালয়ে প্রবেশের আগে জায়েদ বলেন, ‘আমি যদি হারতাম, তাহলে ফুল দিয়ে বরণ করে সুন্দরভাবে চলে যেতাম। শিল্পী সমিতির নির্বাচন মাত্র দুই বছরের ব্যাপার। এটা নিয়ে এত বাড়াবাড়ি করার প্রয়োজন নেই।’

উল্লেখ্য, গত ২৮ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হয়েছিল শিল্পী সমিতির দ্বিবার্ষিক নির্বাচন। এর প্রাথমিক ফলাফলে সাধারণ সম্পাদক পদে জয়ী হন জায়েদ খান। তবে সেটা না মেনে আপিল করেন প্রতিদ্বন্দ্বী নিপুণ।

এরপর জায়েদের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ তোলেন নিপুণ। সেই অভিযোগের প্রেক্ষিতে জায়েদের প্রার্থিতা বাতিল করা হয়। তবে শেষ পর্যন্ত হাইকোর্টে গড়ানোর পর বিষয়টির সুরাহা হয়েছে।

যদিও নিপুণ জানিয়েছেন, তিনি আদালতের রায়ে সন্তুষ্ট নন। শিগগিরই এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করবেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.