শাহেদের চ্যালেঞ্জ, ৬ মাসের বেশি আটকে রাখা যাবে না

নানা সমালোচনা আর জল্পনা-কল্পনা শেষে রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহেদকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সাতক্ষীরা সীমান্ত দিয়ে ভারতে পালিয়ে যেতে চেয়েছিলেন তিনি, তবে র‌্যাবের তৎপরতায় সম্ভব হয়নি। সেখান থেকে হেলিকপ্টারে তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে আসা হয় র‌্যাব হেড কোয়ার্টারে। এমন পরিস্থিতিতেও শাহেদের দম্ভোক্তি অবাক করেছে র‌্যাব সদস্যদের। র‌্যাবের উদ্দেশ্যে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে শাহেদ বলেন, আমাকে ৬ মাসের বেশি আটকে রাখা যাবে না।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ বলেন, দেশের কোটি কোটি মানুষ যে ক্ষুব্ধ, এ নিয়ে তার কোনো বিকার নেই। এখনো সে দম্ভোক্তি করছে, চিৎকার করে কথা বলছে। যে গণমাধ্যমকর্মীরা তার ছবি তুলছিলেন, তাদেরকেও হুমকি দিয়েছেন শাহেদ। তার নিজের নামে একটা পত্রিকার লাইসেন্স আছে বলে মনে করিয়ে দিয়েছেন সবাইকে।

কর্নেল আশিক বিল্লাহ আরো বলেন, শাহেদ খুব ধুরন্ধর। প্রতারণার মামলায় সে আগেও কয়েকবার জেলে গিয়েছিল। সুতরাং আইনের মারপ্যাচগুলো খুব ভালো করে জানা আছে তার। সে কারণেই হয়তো এমন দম্ভোক্তি। আমরা সেসবে কান না দিয়ে তার কাছ থেকে অন্যান্য প্রতারণার তথ্য আদায়ের চেষ্টা করছি। তবে সে বিভ্রান্তিকর তথ্য দেওয়ার চেষ্টা করছে।

গত ৬ জুলাই বিকেলে উত্তরার ১১ নম্বর সেক্টরের ১৭ নম্বর রোডে অবস্থিত রিজেন্ট হাসপাতালে অভিযান চালায় ভ্রাম্যমাণ আদালত। এতে নেতৃত্ব দেন র‌্যাব সদর দপ্তরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম। অভিযানে প্রমাণ মেলে, ৩৫০০ থেকে ৪০০০ টাকা করে নিলেও হাজার হাজার মানুষকে ভুয়া করোনার সার্টিফিকেট ধরিয়ে দিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এছাড়া চিকিৎসার অস্বাভাবিক ফি দেখিয়ে হাতিয়ে নিয়েছে কোটি কোটি টাকা।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

এই বিভাগের আরো খবর
মন্তব্য
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: