রাত পোহালেই অনুষ্ঠিত হবে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচন, নগরজুড়ে চাপা উত্তেজনা

রাত পোহালেই অনুষ্ঠিত হবে বহুল প্রতীক্ষিত চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচন। এবারের নির্বাচন নিয়ে নগরজুড়ে ভোটার ও সমর্থকদের মধ্যে বিরাজ করছে চাপা উত্তেজনা। নির্বাচনের জন্য নগরের ৭৩৫টি কেন্দ্রে পাঠানো হচ্ছে নির্বাচনী সরঞ্জামাদি। একইসঙ্গে কেন্দ্রগুলোতে বুথ তৈরির তোড়জোড় চলছে। এ নিয়ে নির্বাচনের কমিশনের সব রকম প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার (২৬ জানুয়ারি) সকালে মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান বলেন, শান্তিপূর্ণ পরিবেশে নির্বাচনের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছি। চট্টগ্রাম নগরীকে নিরাপত্তার চাদরে আবৃত করা হয়েছে, যাতে কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনার সুযোগ না থাকে।

ভোটারদের কেন্দ্রে আসার আহ্বান জানিয়ে মুহাম্মদ হাসানুজ্জামান বলেন, আপনারা নির্ভয়ে ভোটকেন্দ্রে এসে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিন। ভোটাররা যাতে নির্বিঘ্নে ভোটকেন্দ্রে আসতে পারে, নির্বিঘ্নে ভোট দিয়ে বাড়ি ফিরে যেতে পারে সেটা আমরা নিশ্চিত করেছি।

দুপুরে নগরীর এম এ আজিজ স্টেডিয়ামের জিমনেসিয়াম থেকে ভোটের সরঞ্জাম বিতরণের সময় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হন রিটার্নিং কর্মকর্তা। এক প্রশ্নের উত্তরে হাসানুজ্জামান বলেন, কেন্দ্রভিত্তিক যে মালামাল আছে, তা চারটি ভেন্যু থেকে বিতরণ করছি। আশা করছি, এই মালামাল তিন-চার ঘণ্টার মধ্যে কেন্দ্রে কেন্দ্রে পৌঁছে যাবে। সেখানে যাওয়ার পরে আবার রি-চেক করব, কোনো সমস্যা আছে কি না। আজকের মধ্যেই একেবারে সব পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে প্রস্তুতি গ্রহণ করব যাতে কালকে সকাল আটটার ভোটগ্রহণে কোনো অসুবিধার সম্মুখীন হতে না হয়।

নিরাপত্তা নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, নির্বাচনে পুলিশের ৭ হাজার ৭৭২ জন সদস্য দায়িত্ব পালন করছেন। ২৫ প্লাটুন বিজিবি, র‌্যাবের ৪১টি দল আছে। এছাড়া মোবাইল টিম থাকবে ৪১০টি। স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে থাকবে ১৪০টি দল। ভোটে দায়িত্ব পালন করবে প্রতিটি ওয়ার্ডে র‌্যাব ও পুলিশের একটি করে টিম। আনসারের প্রায় তিন হাজার ৮০০ সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। ৬৯ জন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দায়িত্ব পালন করছেন। এর মধ্যে ৪১ ওয়ার্ডে ৪১ জন ভোটের দিন দায়িত্বে থাকবেন। জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট থাকবেন ২০ জন।

ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রের বিষয়ে জানতে চাইলে হাসানুজ্জামান বলেন, মোট কেন্দ্র ৭৩৫টি। এর মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র ৪১৬টি। সেগুলোতে ৮ জন পুলিশ ও ১০ জন আনসার সদস্য মিলিয়ে ১৮ জন আইনশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব পালন করবেন। সাধারণ কেন্দ্রগুলোতে পুলিশ থাকবে ছয়জন এবং আনসার ১০ জন। আগের চেয়ে বেশি পুলিশ-আনসার আমরা এবার ভোটকেন্দ্রে দিচ্ছি, যাতে ভোটগ্রহণে কোনো বাধা সৃষ্টি না হয়।

এবার চসিক নির্বাচন অতীতের তুলনায় বেশি উৎসবমুখরভাবে হচ্ছে দাবি করে হাসানুজ্জামান বলেন, আপনারা দেখেছেন প্রচার-প্রচারণা ছিল উৎসবমুখর। সুন্দর পরিবেশ আমরা সৃষ্টি করতে পেরেছি। শেষ দিন পর্যন্ত প্রার্থীদের প্রচারণা ছিল উৎসবমুখর। আশা করি আগামীকালের নির্বাচনটি উৎসব মুখর হবে।

শেয়ার করুন

Check Also

বিকেলে সংবাদ সম্মেলনে আসছেন প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ হতে উন্নত দেশে উত্তরণের জন্য জাতিসংঘের চূড়ান্ত সুপারিশ লাভ করায় আজ শনিবার …