মোবাইলে প্রেম, ধানক্ষেতে দেহ, ডোবায় ​মস্তক

ময়মনসিংহের ত্রিশালে তরুণীর মাথাবিহীন মরদেহ উদ্ধারের রহস্য উধঘাটন করেছে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন র‍্যাব-১৪। এ ঘটনায় জড়িত সেলিম মল্লিক (৩০) নামে এক যুবককে গ্রেফতার করেছে। পরে তার দেখানো মত মরদেহের মাথা উদ্ধার করা হয়। বৃহস্পতিবার (৬ জানুয়ারী) দুপুরে জেলার ত্রিশাল উপজেলার ধানীখোলা ইউনিয়নের কাটাঁখালি এলাকার একটি ডোবা থেকে ওই নারীর মাথা উদ্ধার করে র‍্যাব-১৪।

এর আগে গত রবিবার (২ জানুয়ারি) দুপুরে উপজেলার ধানীখোলা ইউনিয়নের কাটাখালী গ্রাম থেকে মরদেহটি উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত নারী রংপুর জেলার মিঠাপুকুর উপজেলার জুলু মিয়ার মেয়ে সুলতানা বেগম (২৭)। সে চাকরীর সুবাদে গাজীপুর জেলায় বসবাস করতেন।

অপরদিকে, গ্রেফতারকৃত সেলিম মিয়া জেলার ত্রিশাল উপজেলার ধানীখোলা ইউনিয়নের কাটাখালী এলাকার আব্দুল মালেকের ছেলে। বৃহস্পতিবার (৬ জানুয়ারী) বিকালে র‍্যাব ১৪’র কার্যালয় থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

এ বিষয়ে র‍্যাব ১৪ অধিনায়ক উইং কমান্ডার মো. রোকনুজ্জামান বলেন, সেলিম মল্লিকের ওই নারীর মোবাইলে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে, ওই সম্পর্কের জেরেই প্রায়ই তারা সাক্ষাত করতেন। সম্প্রতি ওই নারী সেলিম মল্লিককে বিয়ে করার জন্য চাপ দেয়। তবে, সেলিম মল্লিক বিয়ের চাপ সহ্য করতে না পেরে তাকে হত্যার পরিকল্পনা করে।

সেই পরিকল্পনা থেকেই সেলিম মল্লিক তাকে বিয়ে করবে বলে গত শনিবার (১ জানুয়ারী) দুপুরের দিকে তাকে ত্রিশালে নিয়ে আসে। দিনভর তাকে ঘোরানোর পর রাতে ধানীখোলা ইউনিয়নের কাটাখালী এলাকায় নিয়ে গিয়ে অন্য আরেকজনের সহায়তায় ওই নারীকে হত্যা করে। হত্যার পর পরিচয় গোপন ও নিজেকে বাঁচাতে ওই নারীর মাথা কেটে অন্য জায়গায় ফেলে দেয় সেলিম মল্লিক।