মানব দেহ: যে ১০টি অঙ্গের প্রয়োজনীয়তা ছিল অজানা!

মানবদেহ যেন এক অজানা দুনিয়া। আয়নায় নিজের দেহের দিকে তাকালেই দেহের এমন অনেক বৈশিষ্ট্য চোখে পড়ে যাদের প্রয়োজনীয়তা বা কেন তারা দেহে অবস্থান করে তার কারণ আমরা খুঁজে পাই না। যেমন নারীদেহের লোম, যা থেকে অনেক নারীই মুক্তি পেতে পয়সা পর্যন্ত খরচ করেন। জানা যায়, নারীদেহের লোম অনেক পুরুষের জন্য আকর্ষণীয়ও এটি আপনার সঙ্গী খুঁজে পেতে সহায়ক। এমন আরও অনেক দৈহিক বৈশিষ্ট্য আছে যা অপ্রয়োজনীয় মনে হলেও আসলে তা নয়। এসব বৈশিষ্ট্যের উদ্দেশ্য আপনাকে চমকে দেবে নিশ্চিতভাবেই!

আজ খুঁটিয়ে দেখবে এমনই কিছু দৈহিক বৈশিষ্ট্যের কার্যাবলি। আসুন দেখা যাক মানবদেহ আপনাকে নতুন করে আবার কীভাবে অবাক করে।

১. আঁচিল

যখন চামড়ার কোষগুলো চারপাশে না ছড়িয়ে একসাথে একই স্থানে বাড়তে থাকে তখন আঁচিল উৎপন্ন হয়। আঁচিল ক্ষতিকর কিছু নয়। তবে এটা হতে পারে দেহের সেই সংকেত যা আপনাকে জানান দিচ্ছে দেহের অভ্যন্তরীণ কোনো বড়ো রোগ যেমন ক্যানসার এর পূর্বাভাস! Mole-Mapping নামক পদ্ধতির সাহায্যে আঁচিল এর বৃদ্ধি লক্ষ করে প্রাথমিক পর্যায়ে ক্যানসার শনাক্ত করা যায় যা আপনার জীবন বাঁচাতে পারে!

২. বগলের লোম

মানবদেহে লোমের প্রধান কাজগুলোর একটি হচ্ছে ফেরোমোন্স (pheromones) নিঃসরণ করা। এটি একটি হরমোন যা বিপরীত লিঙ্গের সঙ্গীকে আকৃষ্ট করে। গবেষণায় দেখা যায়, বগলের লোম এর মাঝে অন্যতম, যা কটু গন্ধ নিঃসরণ করে। অনেকটা পশুদের মতোই ভিন্ন ভিন্ন মানুষের শরীরে ভিন্ন ভিন্ন গন্ধ থাকে যা অন্যকে আকৃষ্ট করে। খুব সম্ভবত এই কারণেই, অনেকে সঙ্গীর ব্যবহৃত কাপড়ের গন্ধ পছন্দ করে।

৩. আক্কেল দাঁত

আক্কেল দাঁত গজানোর গজানোর সময় বেশ ব্যথা সহ্য করতে হয় আর মনে হয়, কী আপদ রে বাবা! তাই না? আক্কেল দাঁত মূলত আপনার তৃতীয় সারি দাঁত। সুদূর অতীতে শেকড়, পাতা, ঘাস, মাংস এবং বাদামের মত শক্ত খাবার কাঁচা খেতে আমাদের পূর্বপুরুষদের এই দাঁত প্রয়োজন হত। তাই, এগুলোকে ঠিক আপদ বলা চলে না!

৪. ভ্রূ

চোখের ভ্রু আপনাকে বৃষ্টি এবং চুলের ভেতর থেকে বের হওয়া ঘাম থেকে রক্ষা করে যা আপনার দৃষ্টিশক্তি অক্ষুণ্ন রাখে। যেহেতু, এগুলোকে নাড়ানোর মাধ্যমে মনোভাব প্রকাশ করা যায়, তাই যোগাযোগের ক্ষেত্রে এগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। ২০০৩ সালের এক গবেষণা প্রমাণ করে যে, কারো চেহারা চেনার ক্ষেত্রে চোখের ভ্রু খুবই দরকারি। গবেষণায় অংশ নেওয়া লোকেরা ভ্রু সরিয়ে নেয়ার পর মাত্র ৪৬ শতাংশ সময় অতি পরিচিত ও বিখ্যাত ব্যক্তিকে চিনতে পেরেছিলেন।

৫. হাত-পায়ের নখ

হাত ও পায়ের নখ আমাদের আঙ্গুলের সংবেদনশীল অগ্রভাগ কে আঘাত থেকে রক্ষা করে। এগুলো কিছু শক্তভাবে ধরতে এবং নরম ছোট জিনিষ কাটার ক্ষেত্রে সহায়ক। শরীর চুলকানোর ক্ষেত্রে এদের প্রয়োজনীয়তা অনস্বীকার্য। নখ হতে পারে আপনার স্বাস্থ্যের জানালা।নখের রঙের অস্বাভাবিক পরিবর্তন দেহের অভ্যন্তরীণ সমস্যার ইঙ্গিত দেয়।

৬. আলজিহ্বা

আলজিহ্বা হচ্ছে সেই পানির ফোটা আকৃতির কোষ-কলা যা আপনার কণ্ঠনালির শুরুর দিকে অবস্থান করে। এটি একমাত্র মানবদেহ-ই বহন করে এবং গবেষণায় জানা যায় যে এর কারণে আমরা হেলান দেয়া অবস্থায় পান করতে পারি। এছাড়াও এটা কথা বলতেও সাহায্য করে।

৭. পায়ের লোম

মনে হতেই পারে যে পায়ের লোম খুব একটা দরকারি বৈশিষ্ট্য নয়। কিন্তু আদিকালে আমাদের পূর্বপুরুষদের জন্য এগুলো ছিল খুবই দরকারি। এগুলো তাদের উষ্ণ রাখতো, শীত থেকে বাঁচাত। বিশেষত প্যান্ট আবিষ্কারের আগে শীত থেকে বাঁচতে এগুলো ছিল খুব ই কার্যকরী।

৮. অ্যাপেন্ডিক্স

অ্যাপেন্ডিক্স হচ্ছে বৃহদান্ত্র এবং ক্ষুদ্রান্ত্রের মিলনস্থলে অবস্থিত থলি সদৃশ অঙ্গ বিশেষ। অনেকেই একে অপ্রয়োজনীয় দেহাঙ্গ মনে করে। তবে এটি আসলে অন্ত্রের উপকারী ব্যাকটেরিয়াকে রক্ষা করে। ডাইরিয়াজাতীয় রোগে আক্রান্ত হলে অ্যাপেন্ডিক্স এর উপকারী ব্যাকটেরিয়া আপনার স্বাস্থ্য ভাল রাখতে সাহায্য করবে।

৯. চামড়ার দাগ/চিতা

সাধারণত পশ্চিমা বিশ্বের মানুষসহ উজ্জ্বল রঙের চামড়ার মানুষের দেহে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র অসংখ্য দাগ দেখা যায়। এটি জিনগত কারণে বা সূর্যের আলোয় অবস্থান এর দরুন হতে পারে। সূর্যের আলোর অতিবেগুনি-রশ্মি থেকে বাঁচার জন্য এগুলো সাহায্য করে।

১০. দাড়ি-গোঁফ

দাড়িগোঁফ শুধুমাত্র ছেলেদের পুরুষালি ভাব ফুটিয়ে তোলে না বরং পুরুষ সিংহের কেশরের মতো মানুষের ক্ষেত্রেও এটি চোয়ালকে বাহ্যিক আঘাত থেকে প্রতিরক্ষা দেয়। মুখের ত্বক কে সূর্যের ক্ষতিকর রশ্মি থেকে বাঁচায়।

আজকের এই পরিবেশনার কোন তথ্যটি আপনাকে সবচেয়ে বেশি আশ্চর্যান্বিত করেছে? আপনিও কি জানেন এমন আরও অজানা তথ্য? কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না। আর লেখাটি শেয়ার করে এসব অবাক করা অজানা তথ্য জানিয়ে দিন আপনার বন্ধুদেরও! সুস্থ থাকুন। নিরাপদে থাকুন।

শেয়ার করুন