মাংস ক’ম পে’য়ে বরপক্ষের ঝ’গড়া, বিয়ে ভা’ঙ’লো কনে নিজেই

বিয়ে একটি সামাজিক বন্ধন। যা দুটি মানুষ ও পরিবারকে এক সুতোয় বাঁধে। আর এই এক সুতোয়ে বাঁধার আগেই ভেঙে যায় কারো কারো বিয়ে তা জানেন? তাও আবার খা;বারে মাং;স কম থাকায়। শুনতে অবাক লাগ;লেও কথাটা সত্যি। তেমনটাই; হয়েছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের পূর্ব বর্ধমানের গলসির বাহিরঘন্না গ্রামে।

সেখানে বিয়েবাড়িতে খাবারে মাং;স কম পড়তেই ক্ষি;প্ত ব;রপক্ষ। এই নিয়ে কথা কাটা;কাটির এ;কপর্যায়ে হা;তাহা;তি গ;ড়ায় প্যা;ন্ডেল ভাঙ;চুরে। এরপর সব মিটমাটের দিকে এ;গোলেও বেঁ;কে বসেন কনে। বিয়ে হতে না হতেই বর;পক্ষের চর;ম অভ;দ্রতায় বিয়ের আস;রেই তৈরি হয় ‘তা;লা;কনা;মা ’। বিয়ের পর নতুন সংসার করার আগেই বিয়ে ভাঙলেন পাত্রী।

যা শুনতে সিনেমার গল্প বলে মনে হলেও, বাস্তবে এমনই সিদ্ধান্ত নিলেন নববধূ। নববধূ বলেন, যারা সামান্য মাংসের জন্য বিয়েবাড়িতে এমন হুলু;স্থুল কা;ণ্ড ঘটা;তে পারে, আর যা-ই হোক তাদের বাড়ির বউ হতে পারব না।

মেয়ের এই সিদ্ধান্তে প্রথমে বাবা কিছুটা চিন্তায় পড়লেও, পরে তাতেই সম্মত হন পাত্রীর বা;বাও। ওই বাড়িতে গেলে ও কিছুতেই ভালো থাকতে পারবে না।

জানা যায়, ঘটনার দিন গলসির বামুনাড়া গ্রামের বাসিন্দা বর প্রায় ৭০ জন বর;যাত্রী নিয়ে আসে। মেয়ের বাড়ির এলাকায় মসজিদে দুপুরে বিয়ে হবে। কনের বাবা পেশায় একজন দিনমজুর। তিনি দিনমজুর হলেও, মে;য়ের বিয়ের জন্য যথা;সাধ্য আয়ো;জন করেছিলেন। সব কিছুই ঠিক;ঠাক চলছিল। তবে বর;পক্ষ খেতে বসতে না বসতেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে বিয়ের আসর।

এদিকে কনে রাজি না হওয়ায় তার আত্মী;য়স্বজনরাও এই সিদ্ধা;ন্তকে স;মর্থন জানিয়েছেন। তাই আর বিয়ে হয় না। বর যাত্রীকে বউ না নিয়ে বাড়ি ফিরতে হয়।

শেয়ার করুন