ভবন থেকে লাফিয়ে পড়া মেয়ের লাশের পাশে বাবার আর্তনাদ

ময়মনসিংহে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে বহুতল ভবন থেকে লাফিয়ে পড়ে অর্কপ্রিয়া ধর শ্রীজা (১৬) নামে এক স্কুলছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। রবিবার (১৩ মার্চ) দুপুরে নগরীর স্বদেশী বাজারের ‌‘রাইট পয়েন্ট’ নামক বহুতল ভবন এলাকা থেকে লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত অর্কপ্রিয়া ধর শ্রীজা নগরীর পুলিশ লাইন এলাকার শিক্ষক স্বপন ধরের মেয়ে। সে নগরীর বিদ্যাময়ী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর শিক্ষার্থী। শিক্ষক স্বপন ধর ময়মনসিংহ কমার্স কলেজের বাংলা বিভাগের অধ্যাপক ও গবেষক।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, নগরীর স্বদেশী বাজার মোড়ে দুপুর ২টার দিকে একটি শব্দ হয়। লোকজন এগিয়ে গিয়ে দেখেন এক কিশোরী পড়ে আছে। ওপর থেকে পড়লেও কিশোরীর রক্তক্ষরণ হচ্ছিল না। প্যান্ট-শার্ট পরা তরুণী পাশের বহুতল ভবনের ছাদ থেকে আত্মহত্যা করেছে বলে ধারণা স্থানীয়দের।

তাৎক্ষণিকভাবে তরুণীর পরিচয় না মিললেও ঘণ্টাখানেট পর মেয়ের লাশ শনাক্ত করেন বাবা স্বপন ধর। এসময় রাস্তার মাঝে মেয়ের লাশ পড়ে থাকতে দেখে আর্তনাদে ফেটে পড়েন শিক্ষক বাবা স্বপন ধর। নিজের মেয়ের এমন মৃত্যু কোনোভাবেই মানতে পারছিলেন না তিনি। ঘটনার অন্তত দেড় ঘণ্টা আগেও তার মেয়ে ঘরের দরজা খুলে দেয়। এরপর প্রাইভেটের জন্য বেরিয়েছিল বলে জানান তিনি।

মৃত্যুর আগে অর্কপ্রিয়া ধর শ্রীজা নিজের ফেসবুকে ইংরেজি ও বাংলায় একটি ফেসবুক পোষ্ট দেন। যেখানে তার মৃত্যুর জন্য তিনি তার পরিবারকে দায়ী করে গেছেন। যেখানে তিনি লিখেছেন, ‘যারা বলেন, বাবা-মার সাথে একটু ঝগড়া হইলেই মইরা যাওয়া লাগে?…৩ বছর ধরে সুইসাইডাল চিন্তায় ভুইগা আমার এতদিনে সাহস হইসে।…আপনার মনে হয় আমার খুব ইচ্ছা ছিল মরার? বাধ্য হইসি। আপনাদের তৈরি সমাজ আর পেরেন্টিংয়ের কারণে..।’

কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ শাহ কামাল আকন্দ বলেন, ‘পরিবারের শাসন-বারণ মেনে নিতে পারছিল না মেয়েটি। তাই আত্মহত্যা করতে পারে। ফেসবুকের স্ট্যাটাস দেখে তাই বোঝা যাচ্ছে। মৃত্যুর সঠিক কারণ নিশ্চিত হতে লাশ মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.