বিয়ের ‘উপকারিতা’ জা’নালেন টয়া

মুমতাহিনা টয়া পরিচিত মুখ অভিনয় দিয়ে, নাচ দিয়ে এবং তার নিজস্ব ইউটিউব চ্যানেল দিয়েও। ওদিকে শাওন পরিচিত বর্তমানের নির্ভরযোগ্য অভিনয় শিল্পী হিসেবে- দুজনে গতিপথ একত্রে এসে মিলবে কে জানতো। তাই হয়েছে, সমান্তরাল বয়ে চলে মিশেছেন একত্রে। গত বছরের ফেব্রুয়ারিতে বিয়ে করেন শাওন-টয়া। বিয়ের এক বছরে কী উপলব্ধি হলো?

সেটাই জা’নালেন মুমতাহিনা চৌধুরী টয়া। বিয়ে ছাড়া জীবন যে অপূর্ণ সে কথা অকপটে স্বী’কার করলেন প্রণয় স্রোতে ভাসতে থাকা টয়া। নিজে’র ফেসবুক অ্যাকাউন্টে শাওনের স’ঙ্গে বেশকিছু মধুর ও অ’ন্তর’ঙ্গ ছবি প্র’কাশ ক’রেছেন এই অভিনেত্রী। সেখানে পয়েন্ট আ’কারে বিয়ের উপকারিতে বোঝালেন টয়া।

টয়া বলেন, আমা’র বিয়ের প্রথম বছরে আমি অ’ন্তত তিনটা জিনিস শিখেছি। এ নম্বর হলো- বিয়ে ছাড়া কোনোভাবেই জীবন পূর্ণ নয়। দুই নম্বর হলো- প্রেমের স’স্পর্কের সময়টা এবং বিয়ের পরের স’স্পর্কটা একেবারে আ’লাদা। তিন নম্বর হলো-জীবনটা অগোছালো, ক’ঠিনতর বা জটিল, মাঝেমাঝে এই জীবনটাই ভীতিকর। যখন তোমা’র স’ঙ্গে সঠিক মানুষটা থাকবে- এইসব ঝামেলা আর থাকবে না। জীবন হয়ে উঠবে মা’ধুর্যম’য়, দু’র্দান্ত।

কাজে’র সূত্রে টয়া এবং শাওন অল্প সময়ে কাছের ব’ন্ধুতে প’রিণত হন। এবং ধীরে ধীরে তারা একে অপরকে জীবনসঙ্গী হিসেবে ভাবা শুরু করেন। ২০১৯ সালের শেষের দিকে পরিবারের সদস্যদের অনুমতিও নিয়ে নেন তারা। বাকী ছিল শুধু ঘো’ষণা দেওয়ার।

জানুয়ারি মাসে শাওনের জ’ন্মদিন উপলক্ষে একটি ‘চ’মকের’ আয়োজন করেন টয়া। কিন্তু সেই চম’কেই নতুন চ’ম’ক যোগ করে শাওন টয়াকে বিয়ের জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে প্রস্তাব দেন সকলের সামনে। এরপরই চার হাত এক হয়।

শেয়ার করুন