প্রেসক্লাবের সামনে বিক্ষোভ থেকে কয়েকজন আটক

রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ভাসানী পরিষদ বিক্ষোভ-সমাবেশ থেকে কয়েকজনকে ধরে নিয়ে গেছে পুলিশ।
শনিবার দুপুর ১২টার দিকে বিক্ষোভ সমাবেশ শুরু করে ভাসানী পরিষদ। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরের বিরুদ্ধে বিক্ষোভে পাঁচজন নিহত হওয়ার প্রতিবাদে এই সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

পুলিশ বলেছে, কাউকে আটক বা গ্রেফতার করা হয়নি। সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে কয়েকজনকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।
বেলা একটার দিকে সমাবেশে সভাপতির বক্তব্য দেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা জাফরুল্লাহ চৌধুরী। সমাবেশ শেষে অংশগ্রহণকারীরা প্রেসক্লাবের ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা করেন। এ সময় কয়েকজন বিক্ষোভকারীকে ধরে নিয়ে যায় পুলিশ।

পুলিশের রমনা বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) সাজ্জাদুর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, রাজনৈতিক নেতাদের অনুরোধ করা হয়েছিল তারা যেন আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হয়—এমন কোনো কার্যক্রম না করেন।

কাউকে আটক বা গ্রেপ্তার করা হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, সমাবেশ থেকে আগের মামলার সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে দু–তিনজনকে পুলিশের হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। আসামি না হলে যাচাই–বাছাই করে তাদের ছেড়ে দেওয়া হবে।

তবে প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, সমাবেশের মাঝামাঝি সময় বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে পুলিশের বচসা শুরু হলে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।

সমাবেশ শেষে জাফরুল্লাহ চৌধুরী ও ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক প্রেসক্লাবে ঢোকেন। এ সময় তাদের সঙ্গে থাকা অন্তত ১০ জনকে পুলিশ টেনেহিঁচড়ে নিয়ে যায়।

বিক্ষোভ সমাবেশে আরও অংশ নেন গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকি, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক, রাষ্ট্রবিজ্ঞানী দিলারা চৌধুরী প্রমু
সূত্র যুগান্তর

শেয়ার করুন