প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার পাবে ৩৬ লাখ পরিবার

চলমান করোনাভাইরাস পরিস্থিতির মধ্যে গত বছরের মতো এ বছরও প্রধানমন্ত্রীর ঈদ উপহার হিসেবে ২ হাজার ৫০০ টাকা করে পাবে দেশের ৩৬ লাখ ২৫ হাজার দরিদ্র পরিবার। এতে সরকারের ব্যয় হবে ৮১১ কোটি টাকা।

জানা গেছে, গত বছর ৩৬ লাখ ২৫ হাজার ২৬৮ জনকে সহায়তা দেয়া হয়। এবারও ঈদুল ফিতরের আগে এসব পরিবারকে আড়াই হাজার টাকা করে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দিলে মোবাইল ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস (এমএফএস) বিকাশ, রকেট, নগদ ও শিওরক্যাশের মাধ্যমে ঈদের আগেই উপকারভোগীদের কাছে টাকা পাঠানো হবে।

অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, চলমান দ্বিতীয় দফার লকডাউনে আরও অনেক দরিদ্র পরিবার হয়তো নতুন করে সংকটে পড়বে। কিন্তু এ তালিকায় অনেক দরিদ্র ও কর্মহীন নেই। এ ধরনের পরিবারের তালিকা করে প্রতিটি জেলা প্রশাসনের অনুকূলে বাজেটে থোক বরাদ্দ থেকে তাদের সহায়তা করতে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। সেই থোক বরাদ্দ থেকে নতুন করে তালিকাভুক্ত দরিদ্রদের সহায়তা দিতে বলা হয়েছে।

এর আগে করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে গত বছরের সাধারণ ছুটিতে ৫০ লাখ পরিবারকে আড়াই হাজার টাকা করে সহায়তা দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয় সরকার। পরে সহায়তা পাওয়ার উপযুক্ত নয় বিবেচনায় প্রায় ১৪ লাখ পরিবারকে সহায়তা করা হয়নি। পাশাপাশি পিন কার্যকর না থাকায় চার লাখ ২ হাজার ১৩৬ পরিবার উপহারের টাকা তুলতে পারেনি।

ঘরে নতুন সদস্যের আগমনের খবর জানালেন সৃজিত-মিথিলা

তুমুল আলোচিত তারকা দম্পতি সৃজিত মুখার্জি ও রাফিয়াথ রশীদ মিথিলা। দুই বাংলার জনপ্রিয় দম্পতি হিসেবে সমাদৃত এই দুজন। হাজারো ঝ’ড় মো’কাবিলা করার পর দুজন এক হয়েছেন।

পেতেছেন সুখের সংসার। তাইতো আলোচনা-স’মালোচনা সবসময় ঘিরে থাকে এই দুজনকে। তাদের নিয়ে ভক্তদের আগ্রহ তুঙ্গে থাকে সবসময়ই।তাদের বিয়ের পর পরই ক’রোনাভা’ইরাসের কারণে লকডাউন শুরু হয়ে যায়। দুজন রয়ে যায় দুই দেশে। প্রেম ভালোবাসা আবদার সব কিছু প্র’কাশ ক’রতেন একমাত্র ভিডিও কল ও সোশ্যাল মিডিয়াতেই।

এর পর লকডাউন হালকা হতেই মেয়েকে স’ঙ্গে নিয়ে সোজা কলকাতায় চলে যান মিথিলা। এখন তারা স্বামীর স’ঙ্গেই রয়েছেন তিনি। আয়োজন চলছে পূজাকে কে’ন্দ্র করে।তবে ক’রোনার কারণে এবারের পূজা কাটবে বাড়িতেই। খুব একটা বাইরে যাওয়ার সুযোগ হবে না। এর মধ্যেই ঘরে নতুন সদস্যের আগমনের খবর জা’নালেন সৃজিত-মিথিলা।

মূলত ঘরবন্দীর এই সময়টা বড়রা কোনোমতে সয়ে গেলেও বাড়ির ছোটদের জন্য খুব কষ্টের। তাই নিজেদের মেয়ের সময় কাটাতে তারা ঘরে এনেছেন নতুন দুই সদস্য। মিষ্টি দুটি কচ্ছপ ছানা কিনে এনেছেন সৃজিত-মিথিলা।

তাদের মেয়ের জন্যই এই ছানাদের নিয়ে এসেছেন তারা। মিথিলা ট্যুইটারে কচ্ছপের ছবি শেয়ার করে লেখেন, ‘আমাদের পরিবারের নতুন সদস্যদের স’ঙ্গে আলাপ করুন। হ্যারি এবং হার্মোনি।’

শেয়ার করুন