Breaking News

পেট্রোল পাম্পে এই ৪টি পদ্ধতিতে আপনার সাথে প্র’তা’র’ণা করা হয়, আপনি হয়তো বুজতেও পারেন না!

বর্তমানে সারাদেশ করোনার ভ-য়া-ব-হ তান্ডবে স-ন্ত্র-স্ত । পাশাপাশি দেশের অর্থনৈতিক পরিস্থিতি বি-প-র্য-স্ত হয়েছে। বহু মানুষের রুজি-রুটির সংস্থান টালমাটাল খেয়েছে। কাজ হারিয়েছেন বহু মানুষ। এর পাশাপাশি মরার উপর খাঁ-ড়া-র ঘা হয়ে পড়েছে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি। তার মধ্যে রয়েছে শাকসবজি এবং পেট্রোল-ডিজেলের দাম। বর্তমানে পেট্রোলের দাম 80 টাকা ছাড়িয়ে গিয়েছে, ডিজেলের দাম ছাড়িয়েছে 75 টাকা।

আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম বেড়ে যাওয়ার উপর নির্ভর করে পেট্রোলের দাম। কিন্তু তার থেকেও আমাদের দেশের লাগু করা করের নিরিখে পেট্রোলের দাম আরো বেশি হয়। কিন্তু এই পেট্রোল পাম্প গুলোতে বিভিন্ন ভাবে প্রতারণা করা হয় গ্রাহকদের সাথে। আসুন এবার জেনে নিন- বর্তমানে ভারতে রয়েছে প্রায় ৬২০০০ হাজারের মতো পেট্রোল এবং ডিজেলের পাম্প।

কিন্তু এইসব জায়গা-গু-লি বেশিরভাগ জায়গায় গ্রাহকদের সাথে প্র-তা-র-ণা করা হয়। গ্রাহক প্রথমেই যখন তেল ভরতে যান, যদি সে 500 টাকার তেল ভরতে বলেন, তখন পাম্পের কর্মচারী অনেকসময় কথা না শোনার ভান করে 200 টাকা এন্টার করে তেল ভরতে শুরু করেন। কিন্তু যখন আপনি তাকে ভু-ল ধরিয়ে দেয় তখন সে পুরনো মিটার যেখানে 200 টাকা এন্টার করা হয়েছে , সেটা ডিলিট না করেই আবার 300 টাকা বসিয়ে দেন।

এর ফলে 500 টাকার তেল ভরা হয়েছে এটা আপনি ভাবলেন, কিন্তু আদতে ভরা হয়েছে 300 টাকার তেল। তাই এরকম ঘটনা ঘটলেই কর্মচারীকে বলবেন পুরনো মিটার ডিলিট করে নতুন করে ইনপুট বসাতে। অনেক সময় পেট্রোল পাম্পের মিটারে কা-র-চু-পি করা থাকে। তাই কখনোই 50 বা 100 এর গুণিতকে পূর্ণসংখ্যায় তেল ভরাবেন না। আপনি তেল ভরবেন ৫৫, ১২০, ২৫৪ টাকা এইরকম হিসেবে।

এর ফলে আপনি যতটা টাকার তেল ভরবেন ততটাই পাবেন। পাম্পে তেল ভরতে গেলে সব সময় মিটারে চোখ রাখুন। কর্মচারীদের সঙ্গে অযথা গল্প করবেন না। স্ক্রিনে রিডিং দেখে তেল ভরান। অনেক সময় দেখবেন কর্মচারী প্রায়শই ফিলিং পাইপের লিভার ব-ন্ধ করে দেন আবার চালু করেন, এটা তারা ইচ্ছা করেই করে, এর ফলে গ্রাহকরা সমমূল্যের তেল পাননা। তাই এই ঘটনা ঘটলে সঙ্গে সঙ্গে প্র-তি-বা-দ করুন।

যখন কর্মচারী মেশিনে ইনপুট দেয় তখন তার পাম্পিং পাইপের লিভারে হাত দেওয়ার কোনো দরকারই নেই। কারন সে মেশিনে আগে থেকেই জানিয়ে দিয়েছে তার কতটা তেল দরকার। তাই যতক্ষণ না রিডিং সম্পূর্ণ হচ্ছে ততক্ষণ তাকে ট্যাংক থেকে পাইপ তুলতে দেবেন না। যদি মনে হয় যে মিটারে কারচুপি চলছে তাহলে দু লিটারের বা এক লিটারের বোতল নিয়ে গিয়ে তেল ভরে দেখতে পারেন যে সমপরিমাণ তেল আপনি পাচ্ছেন কিনা। এই ধরনের কারচুপি রুখতে গেলে আগে গ্রাহককে সচেতন হতে হবে।

শেয়ার করুন

Check Also

করো’না র টিকা নিতে গিয়ে জানতে পারলেন তিনি মা’রা গেছেন

করো’নাভাই’রাসের টিকার (ভ্যাকসিন) নিব’ন্ধন ক’রতে গিয়ে দে’খতে পান ২০১৪ সালের ৩ জুনে মা’রা গেছেন তিনি। …