পায়ে ব্যথা? জেনে রাখুন ৫টি টিপস

দিনের শেষে পায়ে ব্যথা (Foot pain) হওয়া অনেকের জীবনেই নিত্যদিনকার ঘটনা। বিশেষ করে যারা সারাদিন দাঁড়িয়ে থেকে বা হেঁটে কাজ করেন, কর্মক্ষেত্রে হেঁটে যান বা সারাদিন ঘরের কাজ করেন, উঁচু বা হইল জুতো পরিধান করেন, তাঁদের ক্ষেত্রে এই সমস্যাটি অনেক বেশি। এছাড়া বেশি ওজনের মানুষদেরও কর্মব্যস্ত দিনের শেষে পায়ে ব্যথা (pain) হওয়া খুব স্বাভাবিক।

থাকছে কিছু সাধারণ টিপস। ঘরোয়া এই সকল পদ্ধতিতে কমবে পায়ের ব্যথা (pain) , রাতটি কাটবে স্বস্তিতে, পরের দিনটি শুরু করতে পারবেন ঝরঝরে একটি দেহ নিয়ে।

জুতো খুব গুরুত্বপূর্ন

ঘরে ফিরে প্রথমেই জুতো জোড়া খুলে রাখুন। বাকি সময়টা খালি পায়েই থাকুন। নতুবা কাপড়ের তৈরি জুতো পরিধান করতে পারেন। এছাড়াও সারাদিন ব্যবহারের জন্য জুতোগুলিও বেছে নেবেন খুব সাবধানে। মনে রাখবেন, ফ্যাশনের চাইতে আরাম অনেক জরুরী। যাদের পায়ে ব্যথার (Foot pain) প্রবণতা আছে, তারা ফ্ল্যাট সোলের নরম জুতো পরিধান করলে পায়ে ব্যথা (Foot pain)অনেকটাই কম হবে।

দিনের শেষে করার মত অনেক কাজ জমে থাকে। কিন্তু তার মানে এই নয় যে সাথে সাথেই ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে। কাজে ফাঁকে ফাঁকে বসার চেষ্টা করুন, পা দুটোকে বিশ্রাম দিন। সম্ভব হলে জুতো খুলে রাখে কিছুক্ষণ আরাম করুন। আর বাড়িতে ফিরে প্রথম কাজটি করুন পা মেলে কিছুক্ষণ বসে থাকে। পা ভাঁজ করে বা এলোমেলো ভাবে না বসে পা দুটি সামনে মেলে আরাম করে বসুন। দেখবেন সাথে সাথেই ব্যথা (pain) কিছু কম মনে হচ্ছে।

গরম পানি

সম্ভব হলে গরম পানিতে (warm water) পা ডুবিয়ে বসে থাকুন মিনিট ত্রিশেক। পানিতে ইপসম সল্ট মিশিয়ে নিতে পারেন। সেটা সম্ভব না হলে হট ওয়াটার ব্যাগ দিয়ে পায়ে সেঁক দিন বা গরম পানি দিয়ে গোসল সেরে নিন। পায়ে গরম পানির স্পর্শ ব্যথা (pain) হতে অনেকটা মুক্তি দেবে। শরীরের ব্যথা (pain) থেকে মুক্তি পেটেও এই উপায় কার্যকর।

নিজেই পাগুলোকে ম্যাসাজ বা মালিশ করুন। অন্য কারো সাহায্য নিতে পারেন বা ফুট ম্যাসাজার ব্যবহার করতে পারেন। সাথে সাথেই আরাম মিলবে।

সঠিক খাদ্য

প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন। দেহে পানি শুন্যতা হলেও পায়ে ব্যথা (Foot pain) বা পেশিতে ব্যথা (pain) হতে পারে। কলা খেতে পারেন। এই ফলটিও পেশির ব্যথা ও ক্লান্তি দূর করতে সহায়ক। প্রচুর তাজা শাক সবজি ও ফল রাখুব খাদ্য তালিকায়।

রোজকার জীবনে সামান্য কিছু পরিবর্তনই প্রতিদিনের পায়ে ব্যথা (Foot pain) কম করে দেবে অনেকটাই। কাজ তো কম করা সম্ভব না, তাই চর্চা করতে হবে নতুন ও চমৎকার অভ্যাসে। নিজের খেয়াল রাখুন, সুস্থ থাকুন।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

এই বিভাগের আরো খবর
মন্তব্য
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: