পদ্মা সেতু: বার বার ফেরির ধাক্কা কি নাশকতা না দুর্ঘটনা?

পদ্মা সেতু: বার বার ফেরির ধাক্কা কি নাশকতা না দুর্ঘটনা?

বাংলাদেশ সরকারের অগ্রাধিকারমূলক মেগা প্রকল্প পদ্মা সেতুর দশ নম্বর পিলারে আজ শুক্রবার সকালে একটি ফেরি ধাক্কা খেয়েছে। গত দু মাসে এ নিয়ে পঞ্চম বারের মতো সেতুর পিলারে ফেরির আঘাতের ঘটনা ঘটলো।

পদ্মা সেতু প্রকল্পের পরিচালক মোঃ শফিকুল ইসলাম বিবিসিকে বলেছেন, “ফেরির ধাক্কা সত্ত্বেও সেতুর স্থাপনা নিয়ে উদ্বেগের কোন কারণ নেই। এতে সেতুর ক্ষতির কোন সম্ভাবনাই নেই।”

মিস্টার ইসলাম কয়েকদিন আগে বলেছিলেন সেতু নির্মাণের আগেই এসব বিষয় নিয়ে চিন্তা করা হয়েছে এবং চার হাজার টনের নৌযান এসে ধাক্কা দিলেও সেতুর কোন ক্ষতি হবে না।

পদ্মা সেতু নির্মাণকারী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি জানিয়েছে, পদ্মা সেতু যান চলাচলের উপযোগী হতে ২০২২ সালের এপ্রিল মাস পর্যন্ত লেগে যাবে।

অন্য সব আনুষঙ্গিক কাজ শেষ করে আগামী বছরের জুন নাগাদ সেতু খুলে দেয়ার চিন্তা আছে সরকারের।

সেতুর ওপর এখন যান চলাচলের সড়ক নির্মাণের কাজ চলছে।

দু মাসে ৫ বার পিলারে ধাক্কা ফেরির, ওবায়দুল কাদের বলেছেন ষড়যন্ত্র এখনো শেষ হয়নি

আজ শুক্রবার সকাল সাতটার দিকে কাকলী নামক ফেরিটি সেতুর দশ নম্বর পিলারে আঘাত করে। মাদারীপুরের বাংলাবাজার থেকে সেতুটি মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে যাচ্ছিলো।

এ ঘটনার পরপরই সেতু এলাকায় গেছেন নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

সেখান থেকেই বিবিসি বাংলাকে তিনি বলেন, “সেতু সলিড একটি স্থাপনা। এতে সেতুর কোন ক্ষতি হবে না। তবে এ ধরণের ঘটনা একেবারেই অনাকাঙ্ক্ষিত। এছাড়া ফেরিগুলোর অনেক ক্ষতি হচ্ছে। জানমালের নিরাপত্তার বিষয়টিও আছে। আজই এ নিয়ে করণীয় নির্ধারণ করতে বৈঠক হবে।”

এর আগে গত ৯ই অগাস্ট মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাট থেকে ছেড়ে আসা একটি ফেরি পদ্মা সেতুর দশ নাম্বার পিলারে আঘাত করেছিলো।

পরদিন সিদ্ধান্ত হয়েছিলো যে পদ্মা নদীতে স্রোতের তীব্রতা না কমে আসা পর্যন্ত মাওয়ায় নির্মাণাধীন পদ্মা সেতুর নিচ দিয়ে ভারি যানবাহনবাহী ফেরি চলাচল করতে পারবে না।

এর আগে গত মাসে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে অন্য দুটি ফেরি, সেতুর ১৬ ও ১৭ নম্বর পিলারে আঘাত করেছিল। সবগুলো ঘটনাতেই ফেরির সংশ্লিষ্টদের চাকুরী থেকে সাময়িকভাবে বরখাস্তের পর আটক করে তদন্ত করছে কর্তৃপক্ষ।

নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী তখন বলেছিলেন পদ্মা নদীতে এখন তীব্র স্রোত এবং সেতুর পিলার ও বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইন নির্মাণ কাজের স্থাপনার জন্য স্রোতের চরিত্রেও পরিবর্তন এসেছে।

“স্রোতের ঘুর্ণি পরিবর্তিত হচ্ছে। পদ্মা এমনিতেই আনপ্রেডিক্টেবল নদী। ফেরিগুলো টার্ন নিয়ে সেতুর পিলারের মাঝখান দিয়ে আসা দুরূহ হয়ে গেছে,” বলেন তিনি।

প্রসঙ্গত, জুলাইয়ে সেতুর পিলারে আঘাতের ঘটনার পর ফেরির রুট পরিবর্তনের প্রস্তাব নাকচ করেছে সেতু কর্তৃপক্ষ।

কর্তৃপক্ষ আশা করছে আগামী এক বছরের মধ্যেই সেতুর নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ হবে এবং সে কারণে নতুন ফেরি রুট করলে তাতে অর্থের বিরাট অপচয় ঘটবে বলে মনে করছে তারা।

তবে সড়ক ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বুধবার এক অনুষ্ঠানে বলেছেন পদ্মা সেতুর পিলারে বারবার ফেরির ধাক্কা চালকের অদক্ষতা, নাকি নাশকতা সেটি খতিয়ে দেখা হবে।

তিনি বলেন, “ফেরির ধাক্কা বারবার কেন? একবার নয়, দুবার নয়, চার-চারবার। অদক্ষতার জন্য চালককে শাস্তি দিলেন। চাকরীচ্যুত করলেন। চালকের অদক্ষতা, নাকি নাশকতা, তা খতিয়ে দেখতে হবে। নির্মাণকাজ শেষ হওয়ার আগেই বারবার এ ঘটনা কেন ঘটবে? আমাদের বিষয়টি খতিয়ে দেখা দরকার। এই প্রকল্প নিয়ে ষড়যন্ত্র ছিল, তা এখনো শেষ হয়নি”।

শেয়ার করুন