নারীর দ্বারা পুরুষ ধ’র্ষণ, দৃষ্টান্তমূলক শা’স্তি চেয়ে মানববন্ধন!

মা’দকাসক্তদের পুনর্বাসনের জন্য কেন্দ্র খোলা হলেও সেখানে চলত শারীরিক, মানসিক ও যৌ’ন নি’র্যাতন। কেন্দ্রে চিকিৎসা নিতে আসা রোগীদের কাছ থেকে হাতিয়ে নেওয়া হতো লাখ লাখ টাকা। কোনো রোগী তাদের অ’ভিভাবকদের কাছে নি’র্যাতনের অ’ভিযোগ করলে তার ওপর নি’র্যাতনের মাত্রা আরও বেড়ে যেত। মা’দকাসক্ত পুনর্বাসন কেন্দ্রের মালিক ফিরোজা নাজনীন বাঁধনসহ তার সকল কর্মক’র্তা-কর্মচারীরাও মা’দকাসক্ত।

গাজীপুরের ভাওয়াল মা’দকাসক্ত পুনর্বাসন কেন্দ্রে চিকিৎসাধীন একাধিক কি’শোর ও যুবককে যৌ’ন নি’র্যাতন এবং ধ’র্ষণের ঘটনার প্রতিবাদে, ‘ধ’র্ষক’ ফিরোজা নাজনীন বাঁধনের (৩৫) দৃষ্টান্তমূলক শা’স্তি দাবি করা হয়েছে। একই সঙ্গে আইনে ধ’র্ষণের লি’ঙ্গ-নিরপেক্ষ সংজ্ঞা এবং দ’ন্ডবিধি ৩৭৫ ধারার লি’ঙ্গনিরপেক্ষ সংস্কারও চেয়েছে পুরুষ অধিকার নিয়ে কাজ করা ‘এইড ফর মেন ফাউন্ডেশন’ নামের একটি সংগঠন। আজ শনিবার (৮ জানুয়ারি) তারা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) রাজু ভাস্কর্যের পাদদেশে বিভিন্ন দাবি নিয়ে মানববন্ধন করেছে।

মানববন্ধনে সভাপতিত্ব করেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থী এবং এইড ফর মেন ফাউন্ডেশনের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার আহ্বায়ক মাহিন মুর্তজা অনিক।

আরও উপস্থিত ছিলেন এইড ফর মেন কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইস’লাম নাদিম এবং কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য খালিদ মাহমুদ। এছাড়াও অনলাইন ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে মানববন্ধন কর্মসূচির সাথে ছিলেন এইড ফর মেন ফাউন্ডেশনের সভাপতি আব্দুর রাজ্জাক খান।

মানবন্ধনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আহ্বায়ক মাহিন মূর্তজা বলেন, একাধিক গণমাধ্যমের প্রতিবেদন থেকে আম’রা জানতে পারি যে, গাজীপুরের ‘ভাওয়াল মা’দকাসক্ত পুনর্বাসন কেন্দ্রে’ আশ্রিত অ’প্রাপ্তবয়স্ক কি’শোরদের উপর পাশবিক যৌ’ন নি’র্যাতন করেছেন প্রতিষ্ঠানটির মালিক ফিরোজা নাজনীন ওরফে বাঁধন (৩৫)।

এছাড়াও চিকিৎসা দেওয়ার নামে, পছন্দের পুরুষ রোগীদের ওপর শারীরিক ও মানসিক নি’র্যাতন চালিয়ে তাদের সাথে জো’রপূর্বক যৌ’ন স’ম্পর্ক স্থাপন করতেন বলে গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। তার এই বি’কৃত আচরণ ও জঘন্য অ’প’রাধকে ‘ধ’র্ষণ’ ব্যতীত অন্যকিছু বলার সুযোগ নেই। একজন ধ’র্ষক, ধ’র্ষণের অ’প’রাধের জন্য যেই শা’স্তি পান, ফিরোজা নাজনীন বাঁধনকেও একই শা’স্তি প্রদান করার দাবি জানাচ্ছি।