নারীর অজানা গোপন কথা যা আপনি কখনোই শোনেননি!

বর্তমান বিশ্বে পুরুষের থেকে অনেক দিক থেকে এগিয়ে আছেন নারীরা। অনেক বড় বড় কাছে এক নারীদের ভূমিকা দেখা যায়। গবেষণায় বলছে নারীদের কর্ম ক্ষমাবেশি। সেই সাথে নারীদের বুদ্ধি ও স্বরণ শক্তি হয় পুরুষের তুলনায় বেশি।

আসুন জেনে নেয়া যাক কোন দিকে নারীরা পুরুষদের চেয়ে এগিয়ে:-

নারীরা পুরুষদের তুলনায় দীর্ঘজীবী হন৷ এর সবচেয়ে বড় কারণ হৃদরোগ প্রতিরোধে তাদের অসামান্য ক্ষমতা৷ নারীদের হৃদরোগ হয় সাধারণত ৭০ থেকে ৮০ বছরে, যেখানে বেশিরভাগ পুরুষ ৫০ থেকে ৬০ বছর বয়সের মধ্যেই হৃদরোগে আক্রান্ত হয়।

হিসাব-নিকাশের ক্ষেত্রে পুরুষদের চেয়ে নারীরা অনেক এগিয়ে৷ তারা হিসাব রাখার ক্ষেত্রে, অর্থ বুঝে খরচ করার ব্যাপারে পুরুষদের চেয়ে অনেকটাই পারদর্শী৷ বেশি কিছু গবেষণায় প্রমাণিত যে পুরুষের চেয়ে নারীর সহ্যশক্তি অনেক বেশি৷ প্রসববেদনা সহ্য করা যার অন্যতম প্রমাণ।

গবেষণায় দেখা গেছে, যে কোনো জটিল পরিস্থিতি সামাল দেয়ার ক্ষমতা পুরুষের চেয়ে নারীর অনেক বেশি৷ নারীদের মস্তিষ্কে অক্সিটোসিন বেশি উৎপন্ন হয়, যে হরমোন আমাদের শান্ত রাখতে সাহায্য করে৷

বৃটেনের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা থেকে জানা গেছে, নারীদের স্মরণশক্তি পুরুষদের চেয়ে অনেকগুণ বেশি৷ বয়স বাড়ার সাথে সাথে পুরুষদের স্মরণশক্তি কমলেও, নারীদের তেমন একটা কমে না৷

ইন্টেলিজেন্স এক্সপার্ট বা বিশেষজ্ঞদের মতে, ইউরোপ, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা আর নিউজিল্যান্ডে বুদ্ধিমত্তা পরীক্ষায় নারীরা পুরুষদের হারিয়ে দিয়েছে৷ নারীদের মস্তিষ্কের দ্রুত বিকাশ হয় বলেও জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা৷

জর্জিয়া ও কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় দেখা গেছে, নারীরা বিজ্ঞান খুব ভালো বোঝে৷ আর বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঝ পথে পড়ালেখা ছেড়ে দেয়ার ক্ষেত্রে পুরুষের তালিকাটাই দীর্ঘ৷

বিজ্ঞানীরা বলছেন, নারীরা সংকেত, চিহ্ন এবং নির্দেশনা মনে রাখায় পারদর্শী৷ তাই তাদের পথ হারানোর ভয় যেমন থাকে না, তেমনি হারানো জিনিস খুঁজে পেতেও তাদের সময় লাগে না৷

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

এই বিভাগের আরো খবর
মন্তব্য
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: