নাগরিকদের হাতে অস্ত্র তুলে নিতে বললেন ইউক্রেন প্রেসিডেন্ট

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি দেশটির নাগরিকদের যুদ্ধে নামার আহ্বান জানিয়েছেন। প্রয়োজনে সকল নাগরিকের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়ে সাহায্য করা হবেও বলে জানিয়েছেন তিনি। রাশিয়ান বাহিনীর হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে যারা প্রস্তুত সেসব নাগরিকদের অস্ত্র হাতে তুলে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি। খবর- রয়টার্স।

বৃহস্পতিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) স্থল, আকাশ ও সমুদ্রপথে ইউক্রেনে সর্বাত্মক আক্রমণ শুরু করেছে রাশিয়া। এটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর ইউরোপে এক রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অন্য রাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় হামলা। জেলেনস্কি রাশিয়ানদেরও যুদ্ধের বিপক্ষে দাঁড়ানোর এবং প্রতিবাদ করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, রাশিয়ান ফেডারেশনের সবাই, যারা তাদের বিবেক হারাননি, ইউক্রেনের সঙ্গে যুদ্ধের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করার এখনই সময়।

ইউক্রেনকে প্রতিরক্ষা সহায়তা দেওয়ার জন্য এবং রাশিয়ান আগ্রাসন থেকে এর আকাশসীমা রক্ষায় সাহায্য করতে বিশ্বনেতাদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। জেলেনস্কি বলেন, আমি যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন, ইউরোপিয়ান কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট চার্লস মিশেল, পোলিশ প্রেসিডেন্ট আন্দ্রেজ ডুদা এবং লিথুয়ানিয়ার প্রেসিডেন্ট গিটানাস নৌসেদার সঙ্গে কথা বলেছি।

তিনি বলেন, আমরা পুতিন বিরোধী জোট গঠন শুরু করেছি। আমি ইতোমধ্যেই বিশ্বনেতাদের রাশিয়ার ওপর সম্ভাব্য সব ধরনের নিষেধাজ্ঞা আরোপের আহ্বান জানিয়েছি। এছাড়া ইউক্রেনকে বড় ধরনের প্রতিরক্ষা সহায়তা দিতে এবং আক্রমণকারীদের জন্য ইউক্রেনের আকাশসীমা বন্ধ করে দেওয়ার আহবান জানিয়েছি। একসঙ্গে আমাদেরকে অবশ্যই ইউক্রেনকে বাঁচাতে হবে, গণতান্ত্রিক বিশ্বকে বাঁচাতে হবে এবং আমরা তা করব।

প্রসঙ্গত, রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন উইক্রেনে সামরিক অভিযান পরিচালনার ঘোষণা দেওয়ার পর ইউক্রেনের কয়েকটি শহরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে রুশ সৈন্যরা। এতে হামলার প্রথম ঘণ্টায় ইউক্রেনের ৪০ জনের বেশি সৈন্য এবং ১০ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছে। ইউক্রেন বলছে, তারা ‘৫০ জন রাশিয়ান দখলদার সৈন্যকে’ হত্যা করেছে। রাশিয়ার স্থল বাহিনী বিভিন্ন দিক থেকে ইউক্রেনে প্রবেশ করার ঘণ্টাখানেক পর এ ঘোষণা আসে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.