দৌলতদিয়া পল্লী থেকে যৌনকর্মীর গলাকাটা লাশ উদ্ধার

দৌলতদিয়া পল্লী থেকে যৌনকর্মীর গলাকাটা লাশ উদ্ধার

গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া যৌনপল্লী থেকে রিতু বেগম (২৮) নামে এক যৌনকর্মীর গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

শনিবার (৯ অক্টোবর) সকালে পল্লীর বাড়িওয়ালা সুজন খন্দকারের বাড়ি থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়। রিতু বেগম সুজন খন্দকারের কথিত স্ত্রী। তার বাড়ি গাজিপুর জেলার শ্রীপুর উপজেলায়।

দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেন গোয়ালন্দ ঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর।

যৌনকর্মীদের সংগঠন অসহায় নারী ঐক্য সংগঠনের সভাপতি ঝুমুর বেগম সারাবাংলাকে জানান, সকালে যৌনকর্মী রিতু বেগমের শোবার ঘরের দরজার নিচ দিয়ে রক্ত গড়িয়ে পড়তে দেখে থানায় খবর দেন। পরে গোয়ালন্দ ঘাট থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে।

নিহত রিতু বেগমের মেয়ে আশা জানান, দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে তার মা কথিত সাংবাদিক সুজন খন্দকারের বাড়িওয়ালি হিসেবে থাকতেন। গত রাতেও সুজন তার মায়ের ঘরে আসে। সে তখন পাশের ঘরেই ছিল। পরে সে ঘুমিয়ে যায়। সকালে উঠতে দেরি হলে স্থানীয়রা তাকে ডেকে বলে তার মাকে কারা যেন জবাই করে হত্যা করেছে।

গোয়ালন্দ ঘাট থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর জানান, তার শরীরে একাধিক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

শেয়ার করুন