তুরাগে ট্রলারডুবি, শিশুসহ ৩ জনের মরদেহ উদ্ধার

তুরাগে ট্রলারডুবি, শিশুসহ ৩ জনের মরদেহ উদ্ধার

রাজধানীর গাবতলীতে তুরাগ নদীতে একটি যাত্রীবাহী ট্রলার ডুবির ঘটনায় দুই শিশু ও এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করেছে ফায়ার সার্ভিস। এ ঘটনায় চার জন নিখোঁজ রয়েছে বলে ফায়ার সার্ভিস সদর দফতর সূত্রে জানা গেছে। নিখোঁজরা হলেন আরমান, জেসমিন, শায়লা বিবি (৩০), শিশু রিপন (২৬ মাস), আরমিনা (৮) ও ফারহান মনি (৫)। নিখোঁজ রয়েছে চার বছরের আরমান, ১৫ মাসের জেসমিন, ৩০ বছরের শায়লা বিবি, দুই বছরের রিপন , আট বছরের আরমিনা এবং পাঁচ বছরের ফারহান মনি।

নিখোঁজদের উদ্ধারে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরি দলের তিনটি ইউনিট কাজ করছে। বিডি২৪লাইভের কাছে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ফায়ার সার্ভিস সদর দফতরের ডিউটি অফিসার লিমা খানম। তিনি জানান, শনিবার (৯ অক্টোবর) সকাল আটটা ৫০ মিনিটে ট্রলার ডুবির খবর পাওয়া যায়। সঙ্গে সঙ্গে ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ডুবুরি দলকে আমিন বাজারে তুরাগ নদীতে পাঠানো হয়েছে। নিখোঁজদের উদ্ধারে কাজ চলছে।

Read More – ডুবে যাওয়া জাহাজ থেকে ১০ নাবিক উদ্ধার

এবার পাথর নিয়ে মোংলা বন্দরের দুবলার চরে ডুবে গেছে এমভি বিউটি লোহাগড়া-২ নামে আরও একটি লাইটার জাহাজ। শনিবার (৯ অক্টোবর) ভোর রাতে বন্দরের ওই এলাকায় তলা ফেটে ডুবে যায় জাহাজটি। এসময় ওই জাহাজে থাকা ১০ নাবিককে জীবিত উদ্ধার করেছে কোস্টগার্ড।

এর আগে শুক্রবার (৮ অক্টোবর) দুপুরে পশুর নদীতে সার নিয়ে এম ভি দেশ বন্ধু নামে আরও একটি লাইটার জাহাজ ডুবে যায়। সেটি এখনও উদ্ধারের তৎপরতা শুরু করতে পারেনি মালিকপক্ষ।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের হারবার মাষ্টার কমান্ডার শেখ ফখর উদ্দিন ও কোস্টগার্ড পশ্চিম জোনের (মোংলা সদর দপ্তর) গোয়েন্দা কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কমান্ডার মোঃ হাসানুজ্জামান বলেন, মোংলা বন্দরেরর বাইরে ফেয়ার ওয়ে এলাকায় অবস্থান করা সিঙ্গাপুর পতাকাবাহী এম ভি সাগর রতন থেকে ১২০০ মেট্রিক টন পাথর নিয়ে খুলনার উদ্দেশ্য যাচ্ছিল এমভি বিউটি লোহাগড়া- ২ লাইটার জাহাজ।

এ সময় পথেই ভোররাতে দুবলার চর এলাকায় তলা ফেটে ডুবতে থাকে ওই জাহাজটি। এসময় খবর পেয়ে কোস্টগার্ড দুবলা ক্যাম্পের সদস্যরা দুর্ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই জাহাজে থাকা ১০ নাবিককে জীবিত উদ্ধার করে। এরপর পরে তাদেরকে অন্য একটি লাইটার জাহাজ এম ভি দেশ দিগন্তে উঠিয়ে দেয় কোস্টগার্ড। উদ্ধারকৃত ওইসব নাবিকদের বাড়ী দেশের বিভিন্ন জেলায় বলে জানা গেছে।

শেয়ার করুন