চ’ড়া সুদে ঋণ দেন, পরিশোধে ব্য’র্থ হলেই পা’শ’বি’ক নি’র্যা’ত’ন

হবিগঞ্জ শহরের গরুর বাজার এলাকার সুদের কারবারি সেলিম আহমেদের নি’র্যা’ত’নে অ’তি’ষ্ঠ হয়ে উঠেছে সাধারণ লোকজন। তার কাছ থেকে ঋ’ণ নিয়ে লা’ভের টাকা দিতে না পেরে অনেকেই নি’র্যা’ত’নের শি’কা’র হয়েছেন। যারা প’রি’শোধ ক’রতে পারছেন না তাদেরকে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে ডে’কে মা’’রধো’র করছেন সেলিম। স’ম্প্রতি তার নি’র্যা’ত’নের চিত্র সিসি ক্যামেরায় ধ’রা প’ড়েছে।

এ ছাড়া কামড়াপুর এলাকার ফজলু মিয়া নামে এক ব্যবসায়ী তার নি’র্যা’ত’ন ও প্রা’ণনা’শের হু’ম’কির ভ’য়ে মঙ্গলবার হবিগঞ্জে’র জে’লা প্রশাসক বরাবর লিখিত অভি’যোগ দা’য়ের ক’রেছেন। লিখিত অভি’যোগের অনুলিপি সরকারের বিভিন্ন দপ্তরে প্রেরণ করা হয়েছে।

লিখিত অভি’যোগ সূত্র ও নির্যাতিতরা জা’নান, হবিগঞ্জ সদর উপজে’লার নছরতপুর গ্রামের মৃ’’ত নিম্বর আলীর ছেলে সেলিম আহমেদ দীর্ঘদিন ধ’রে গরু বাজার, কামপড়াপুর, যশের আব্দাসহ হবিগঞ্জে’র বিভিন্ন স্থানে লোকজনদের চ’ড়া সুদে টাকা দিচ্ছেন। এ সুদের কা’রবা’রে তাকে সহযোগিতা করছে তার ছেলে রাকিব আহমেদ।

তিনি কারো কাছ থেকে সপ্তাহে সুদ নিচ্ছেন আবার কারো কাছ থেকে দৈনিক ও কারো কারো কাছ থেকে মাসিক সু’দ নিচ্ছেন। দরি’দ্র লোকজন আর্থিক স’মস্যায় প’ড়ে তার কাছ থেকে সুদে টাকা নেন। সুদে টাকা নিয়ে দিতে না পারলে সেলিম আহমেদ তাদের প্রথমে গা’লি’গা’লা’জসহ দু’র্ব্য’ব’হার করেন। পরবর্তীতে সুদের অংক দ্বিগুণ বাড়িয়ে দেন।

বানিয়াচং উপজে’লার মা’র্কুলী এলাকার ফজলু মিয়া গরু বাজার এলাকায় বসবাস করে শ্রমিকের কাজ করেন। তিনি সেলিম আহমেদের কাছ থেকে সুদে টাকা নেন। কিন্তু সেলিম আহমেদের সুদের লা’ভ দিতে না পারায় সেলিম তাকে ডেকে একটি দোকানে নিয়ে যান। সেখানে তাকে মা’র’ধ’র ও শা’রীরি’কভাবে নি’র্যা’ত’ন করেন। এই নি’’র্যা’ত’নের দৃ’শ্য সিসি ক্যামেরায় রেকর্ড হয়।

নি’র্যা’ত’নের শি’কা’র ফজুল মিয়া জা’নান, সেলিম আহমেদের কাছ থেকে সুদে ১০ হাজার টাকা নিয়েছিলেন। প্রতি হাজারে দৈনিক ২০০ টাকা তাকে দিতে হয়। কিন্তু এই করো’না র সময়ে তার উপা’র্জন ব’ন্ধ হয়ে পড়ায় সেলিম আহমেদকে সুদের টাকা দিতে পারছিলেন না। সুদের টাকা না দেওয়ার কারণেই সেলিম মিয়া তাকে দোকানে ডেকে নিয়ে মা’র’ধ’র করেন। শুধু ফজলু মিয়া নন তার কাছ থেকে সুদে টাকা নিয়ে অনেক লোক নি’র্যা’ত’নের শি’কা’র হয়েছেন।

সেলিম আহমেদের বি’রু’দ্ধে আ’ইনি ব্যব’স্থা নেওয়ার জন্য প্রশা’সনের কাছে জো’র দা’বি জা’নিয়েছেন অভি’যোগকারী।

সুদ কারবারি সেলিম আহমেদের স’ঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তিনি ফোন তোলেননি।

হবিগঞ্জে’র অতিরি’ক্ত জে’লা প্রশাসক (রাজস্ব) তারেক মোহাম্মদ জাকারিয়া বলেন, এ ব্যাপারে কোনো অভি’যোগ আ’সলে ত’দন্তপূর্বক ব্যব’স্থা গ্রহণ করা হবে।

শেয়ার করুন