চলমান বিধিনিষেধের মেয়াদ বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

চলমান বিধিনিষেধের মেয়াদ বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি

চলমান কঠোর বিধিনিষেধকে আগামী ১০ আগস্ট রাত ১২টা পর্যন্ত বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। আজ বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) এক সংবাদ বুলেটিনে এ তথ্য পাওয়া যায়। এদিকে বিধিনিষেধের মধ্যে বিমানের অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চলাচলের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সাথে খোলা থাকবে শিল্প কারখানা। প্রজ্ঞাপনে আগামী ১১ আগস্ট থেকে অফিস-আদালত, দোকানপাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং সীমিত পরিসরে গণপরিবহন খুলে দেওয়ার বিষয়ে বলা হয়েছে। টিকাগ্রহণ ছাড়া কেউ কর্মস্থলে আসতে পারবেন না বলেও জানানো হয়।

এদিকে, মঙ্গলবার (৩ আগস্ট) ভার্চুয়ালি অনুষ্ঠিত আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা শেষে সচিবালয়ে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক সাংবাদিকদের জানান, বিধিনিষেধের মেয়াদ আরও পাঁচ দিন (১০ আগস্ট পর্যন্ত) বাড়ানো হয়েছে। ১১ আগস্ট থেকে খুলবে সব ধরনের সরকারি-বেসরকারি অফিস, দোকানপাট, শপিংমল; চলবে গণপরিবহন।

তিনি বলেন, ১১ আগস্ট থেকে এই কঠোর বিধিনিষেধ আর থাকবে না। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সবকিছু ধীরে ধীরে খুলে দেওয়া হবে। তবে এই সময়ের মধ্যে সবাইকে ভ্যাকসিন নিতে হবে।

বিধিনিষেধের অংশ হিসেবে ১ জুলাই থেকে দেশের অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট পরিচালনা বন্ধ রয়েছে। তবে বিদেশগামী ও বিদেশফেরত যাত্রীদের জন্য অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট চলাচলের অনুমতি দিয়েছিল বেবিচক। বিমান বাংলাদেশ, নভোএয়ার, ইউএস-বাংলা এই তিন এয়ারলাইনস কর্তৃপক্ষ বিদেশগামী যাত্রী, যাদের আন্তর্জাতিক ভ্রমণের টিকিট আছে, তাদের অভ্যন্তরীণ গন্তব্যগুলোতে যাতায়াতের অনুমতি দেয়।

গত ১৪ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে ৭ দিনের কঠোর লকডাউন শুরু হয়। পরে ৬ দফা লকডাউন বা বিধিনিষেধের মেয়াদ বাড়ানো হয়। গত ২৩ মে থেকে ৩০ মে রোববার মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ বাড়িয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। এর পরে কোরবানি ঈদের জন্য এক সপ্তাহ লকডাউন শিথিল করে সরকার। পরে ২৩ জুলাই থেকে ৫ আজ বৃহস্পতিবার (৫ আগস্ট) পর্যন্ত কঠোর লকডাউন চলছে। দেশে যা আগামী ১০ আগস্ট পর্যন্ত চলবে।

শেয়ার করুন