ঘরে নতুন সদস্যের আগমনের খবর জানালেন সৃজিত-মিথিলা

তুমুল আলোচিত তারকা দম্পতি সৃজিত মুখার্জি ও রাফিয়াথ রশীদ মিথিলা। দুই বাংলার জনপ্রিয় দম্পতি হিসেবে সমাদৃত এই দুজন। হাজারো ঝ’ড় মো’কাবিলা করার পর দুজন এক হয়েছেন।

পেতেছেন সুখের সংসার। তাইতো আলোচনা-স’মালোচনা সবসময় ঘিরে থাকে এই দুজনকে। তাদের নিয়ে ভক্তদের আগ্রহ তুঙ্গে থাকে সবসময়ই।তাদের বিয়ের পর পরই ক’রোনাভা’ইরাসের কারণে লকডাউন শুরু হয়ে যায়। দুজন রয়ে যায় দুই দেশে। প্রেম ভালোবাসা আবদার সব কিছু প্র’কাশ ক’রতেন একমাত্র ভিডিও কল ও সোশ্যাল মিডিয়াতেই।

এর পর লকডাউন হালকা হতেই মেয়েকে স’ঙ্গে নিয়ে সোজা কলকাতায় চলে যান মিথিলা। এখন তারা স্বামীর স’ঙ্গেই রয়েছেন তিনি। আয়োজন চলছে পূজাকে কে’ন্দ্র করে।তবে ক’রোনার কারণে এবারের পূজা কাটবে বাড়িতেই। খুব একটা বাইরে যাওয়ার সুযোগ হবে না। এর মধ্যেই ঘরে নতুন সদস্যের আগমনের খবর জা’নালেন সৃজিত-মিথিলা।

মূলত ঘরবন্দীর এই সময়টা বড়রা কোনোমতে সয়ে গেলেও বাড়ির ছোটদের জন্য খুব কষ্টের। তাই নিজেদের মেয়ের সময় কাটাতে তারা ঘরে এনেছেন নতুন দুই সদস্য। মিষ্টি দুটি কচ্ছপ ছানা কিনে এনেছেন সৃজিত-মিথিলা।

তাদের মেয়ের জন্যই এই ছানাদের নিয়ে এসেছেন তারা। মিথিলা ট্যুইটারে কচ্ছপের ছবি শেয়ার করে লেখেন, ‘আমাদের পরিবারের নতুন সদস্যদের স’ঙ্গে আলাপ করুন। হ্যারি এবং হার্মোনি।’

Read More – লকডাউন বাস্তবায়ন করতে গিয়ে মারধরের শিকার তিন ট্রাফিক পুলিশ, আটক ৪

এবার জয়পুরহাটে লকডাউন বাস্তবায়নের দায়িত্বে থাকা তিন ট্রাফিক পুলিশকে মারধর করেছে স্থানীয় কয়েকজন যুবক। গতকাল বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে জয়পুরহাট শহরের বিআইডিসি মোড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ বিষয়ে জয়পুরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর জাহান জানিয়েছেন, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত চারজনকে আটক করেছে পুলিশ।

এদিকে আটকরা হলেন- জয়পুরহাট পৌর শহরের বুলুপাড়া সান্টু মন্ডল, সাহেব পাড়া মহল্লার চঞ্চল হোসেন, রুপনগর মহল্লার সাগর হোসেন, গুলশান মোড় মহল্লার আশিকুর রহমান।

এ ব্যাপারে ওসি আলমগীর জাহান জানান, লকডাউনের বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে কঠোর অবস্থানে ছিল পুলিশ। শহরের বিআইডিসি মোড়ে পুলিশের চেকপোস্টের সামনের রাস্তা দিয়ে আটক সান্টু মোটরসাইকেল যোগে যাচ্ছিলেন। সরকারি নির্দেশনা অমান্য, মুখে মাস্ক এবং মাথায় হেলমেট না থাকায় চেকপোস্টের দায়িত্বে থাকা ট্রাফিক পুলিশ তাকে মোটরসাইকেলের সঠিক কাগজপত্র দেখাতে বললেই সান্টুসহ স্থানীয় কয়েকজন যুবক তিন পুলিশকে মারধর করে।

পরে তাদের উদ্ধার করে জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়। বর্তমানে তারা ব্যারাকে আছেন। এ ঘটনায় মামলা দায়ের প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান ওসি।

শেয়ার করুন