করো’না ভ্যাকসিন মু’সলিম সম্প্রদায়ের জন্য হারামঃ মা’ওলানা বরকতি

করো’নার ভ্যাকসিন নিয়ে গোটা ভা’রতে যখন তৎপরতা শুরু হয়েছে তখন ওই ভ্যাকসিনে শু’ক’রের চর্বি ব্যাবহার নিয়ে শুরু হয়েছে বিত’র্ক। ভা’রতীয় মু’সলিম সংগঠনের পক্ষ থেকে স্প’ষ্ট করে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে তাদের ওপর ওই ভাকসিন প্রয়োগ করা যাবে না। তাদের দাবি এই করো’না ভ্যাকসিন মু’সলিম সম্প্রদায়ের জন্য হারাম।

এমন এক পরিস্থিতিতে আজ শনিবার (২৬ ডিসেম্বর) করো’না ভ্যাকসিন নিয়ে মুখ খুললেন কলকাতার টিপু সুলতান ম’সজিদের শাহী ই’মাম মা’ওলানা নুর-উর-রহমান বরকতি।

মা’ওলানা নুর-উর-রহমান বরকতি বলেছেন গোটা বিশ্ব করো’নাভাই’রাসের কবলে কিন্তু তাই বলে মু’সলিম সম্প্রদায়ের মানুষ এই ভাই’রাসকে ভ’য় পায় না এবং তাদের ভ্যাকসিনের প্রয়োজন নেই। আমি পরিস্কার করে বলতে চাই, মু’সলিম’রা ভ্যাকসিন ব্যবহার করবে না।

এই ভ্যাকসিনের মাধ্যমে ভা’রতের মু’সলিম’দের হ”ত্যা করার ই’হুদিদের ষ’ড়য’ন্ত্র বলে অ’ভি’যোগ করে বরকতি জানান, করো’নাভাই’রাস কখনই মু’সলিম’দের ভ’য়ের ছিল না। বরং এটা হিন্দুদের ওপর প্রভাব ফে’লেছে, তারা ভ’য় পেয়েছে। মু’সলিম অধ্যুষিত এলাকায় করো’নার কোন প্রভাবই পড়ে’নি। আমাদের ওপর আল্লার দোয়া আছে, তাই আম’রা এখনও অরক্ষিত আছি।

শাহী ই’মাম স্প’ষ্ট করে জানিয়েছেন, তার কোন মু’সলিম ভাইয়েরা এই করো’না ভ্যাকসিন ব্যবহার করবে না যতক্ষণ না পর্যন্ত কোন মু’সলিম পন্ডিত এই ভ্যাকসিনের ফরমুলা দেখে নির্দেশ দেবে। মা’ওলানা নুর-উর-রহমান বরকতি বলেন এটা আমাদের জন্য ক্ষ’তিকার’ক।

শু’করের মাং’স খাওয়া বা ব্যবহার করা-উভ’য়ই ইস’লামে হা’রা’ম বলে গণ্য করা হয়ে থাকে। তাই এই ভ্যাকসিনের ফ’র্মুলা প্রথমে কোন ইস’লামিক প’ন্ডিতের সামনে দেখাতে হবে তার পর মু’সলিম সম্প্রদায়ের মানুষদের মধ্যে তা প্রয়োগ করা হবে।

সম্প্রতি উত্তর প্রদেশের দারুল উলুম দেওবন্দ’ এর এক মৌলবীও মু’সলিম সমাজকে আর্জি জানিয়ে বলেছেন, করো’না ভ্যাকসিন ব্যবহার করার আগে মু’সলিম’দের উচিত, ভ্যাকসিন তৈরিতে ব্যবহৃত উপাদানগু’লি ইস’লামের জন্য অনুমমোদিত কি না। এই ভ্যাকসিন মু’সলিম’দের জন্য নি’রা’পদ কি না তা ফতোয়া বিভাগের ত’রফে ঘোষণা দেওয়ার পরই তা ব্যবহার যোগ্য হবে।

গতকালই মুম্বাইয়ের রাজা অ্যাকাডেমির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ নুর দাবি করেন চীনের করো’না ভ্যাকসিনে পর্ক জিলেটিন ব্যবহার করা হয়েছে ফলে চীনের তৈরি করো’না ভ্যাকসিন অবি’লম্বে ভা’রতে ব্যবহারের ওপর নি’ষেধা’জ্ঞা জারি করা উচিত। কারণ এই ভ্যাকসিন মু’সলিম’দের জন্য হা’রা’ম।

একইসাথে তার দাবি, কোনও ভ্যাকসিন এ দেশের আনার আগে সরকারের উচিত ভ্যাকসিন স’ম্পর্কে সঠিক তথ্য প্রকাশ করা। আমাদের জানা দরকার কোন ভ্যাকসিনে কি কি ব্যবহার করা হচ্ছে। তাহলে মু’সলিম সমাজের মানুষকে এই বিষয়ে আবগত করা যাবে।

উল্লেখ্য, যদিও ফাইজার, মডার্না, অ্যাস্ট্রজেনেকা’এর মতো ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থার তর’ফে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে তাদের ভ্যাকসিনে পর্ক জিলেটিনের ব্যবহার করা হয়নি।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

এই বিভাগের আরো খবর
মন্তব্য
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: