ইশ! এ সড়ক দেখতে কবে যে যাবো : প্রধানমন্ত্রী

অবশেষে উদ্বোধন হলো হাওরের বিস্ময় খ্যাত নান্দনিক অলওয়েদার সড়কের। বৃহস্পতিবার (৮ অক্টোবর) সকালে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কিশোরগঞ্জের গভীর হাওরে নির্মিত ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম অলওয়েদার সড়কের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

উদ্বোধন ঘোষণার পর সড়কটির ভিডিওচিত্র দেখানোর সময় হাওরের বিশাল জলরাশির বুক চিরে যাওয়া এই সড়কের নান্দনিক সৌন্দর্য্য দেখে অভিভূত হন তিনি। করোনা পরিস্থিতির কারণে সশরীরে উপস্থিত হতে না পেরে এ সময় আক্ষেপ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রী বলে ওঠেন, ইশ! কবে যে যাবো! এ রাস্তায় কবে যাবো!

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে প্রধানমন্ত্রী আবারও তাঁর বক্তব্যে সড়কটি পরিদর্শনে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমার মনটা পড়ে থাকলো। এই রাস্তা দিয়ে কবে আমি একটু গাড়িতে চড়ে যাবো। ইনশাআল্লাহ। করোনাভাইরাস গেলে আমি আসবো। অবশ্যই আমি আসবো, এতে কোন সন্দেহ নাই। কারণ আমারও ইচ্ছা ছিলো। মহামান্য রাষ্ট্রপতিও বার বার চাচ্ছিলেন আমি যেন সশরীরে যাই। কিন্তু করোনার কারণে যাওয়া হলো না। ইনশাআল্লাহ, এই দুর্দিন থাকবে না। যখনই সুযোগ পাবো সবার আগে আমি এই রাস্তায় আসবো। ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রামে আমি যাবো।’

৮৭৪.০৮ কোটি টাকা ব্যয়ে ২৯.৭৩ কিলোমিটার দীর্ঘ হাওরের বুকে সারা বছর চলাচল উপযোগী সড়কটির উদ্বোধন উপলক্ষে মিঠামইন সদরের রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ অডিটোরিয়াম থেকে প্রধানমন্ত্রীর এই ভিডিও কনফারেন্সে সংযুক্ত হন স্থানীয় সংসদ সদস্য রাষ্ট্রপতির বড় ছেলে রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক সহ অন্যরা।

মিঠামইন প্রান্তে ভিডিও কনফারেন্স সঞ্চালনা করেন জেলা প্রশাসক মো. সারওয়ার মুর্শেদ চৌধুরী। সেখান থেকে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শুরুতেই কথা বলেন ৭৯ বছর বয়সী আব্দুর রহমান।

পরে একে একে সংসদ সদস্য রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক, মিঠামইন উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ আবদুল হক নূরু, অষ্টগ্রাম উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ফজলুল হক হায়দারী বাচ্চু, ইটনা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. ইসমাইল হোসেন, পুনর্বাসিত ভিক্ষুক আফজাল হোসেন, দুর্যোগ সহনীয় ঘরের উপকারভোগী আকলিমা আক্তার এবং কৃষক আব্দুল মজিদ।

এ সময় পুলিশ সুপার মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার), জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জিল্লুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি অ্যাডভোেেকট কামরুল আহসান শাহজাহান, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট এম এ আফজল, পিপি শাহ আজিজুল হক প্রমুখ সহ তিন উপজেলার প্রশাসনের কর্মকর্তা, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, সাংবাদিক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন।

অন্যদিকে গণভবন প্রান্তে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন।

প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন এবং সড়ক ও জনপথ বিভাগের সচিব মো. নজরুল ইসলাম প্রকল্পের ওপর একটি সংক্ষিপ্ত প্রেজেন্টেশন উপস্থাপন করেন।

আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ, পিএমও সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া এবং প্রেস সচিব ইহসানুল করিম এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

উদ্বোধন ঘোষণা শেষে মোনাজাত পরিচালনা করেন চমকপুর ইসলামিয়া দাখিল মাদরাসার সুপার মাও. ইয়াকুব আলী বরুনী।

ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম অলওয়েদার সড়ক নির্মাণে রাষ্ট্রপতির সদিচ্ছা ও উদ্যোগের প্রশংসা করে ভিডিও কনফারেন্সে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমি মহামান্য রাষ্ট্রপতিকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। মহামান্য রাষ্ট্রপতি যদি এই উদ্যোগটা না নিতেন, আর বারবার আমাদের না বলতেন, তাহলে এই অঞ্চলে এই রকমভাবে রাস্তা যে করা যায়, তা চিন্তারই বাইরে ছিল। কিন্তু আজকে তার অনুপ্রেরণা এবং তারই উদ্যোগে এ রাস্তাটি আমরা করতে পেরেছি।’

প্রধানমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন এই সড়ক হওয়ায় কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চলের মানুষের এখন আর সেই ‘আগের মতো দুঃখ থাকবে না’। তিনি বলেন, এই রাস্তা নির্মাণের ফলে হাওরবাসীর চলাচলের দুর্ভোগ কমেছে, সৃষ্টি হয়েছে নতুন কর্মসংস্থানের।

সারা দেশে যোগাযোগ নেটওয়ার্ক গড়ে তোলার বিষয়ে গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পণ্য পরিবহন ও মানুষের অর্থনৈতিক স্বাবলম্বিতা নিশ্চিত করতে সরকার সারা দেশে যোগাযোগ নেটওয়ার্ক গড়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, সারা দেশে একটা সড়কের নেটওয়ার্ক গড়ে তুলছি; নৌপথগুলো সচলের ব্যবস্থা নিয়েছি। রেলপথ সংযোগ পুনরায় স্থাপন করে এবং আরও নতুন নতুন অঞ্চলে রেললাইন সম্প্রসারণ করে রেলে যোগাযোগের সুযোগটা বাড়াচ্ছি। নৌপথে যোগাযোগ বাড়াচ্ছি, সড়কপথে যোগাযোগ বাড়াচ্ছি।

হাওরবাসীর কষ্ট লাঘবে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এঁর অভিপ্রায় অনুযায়ী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্যোগে ইটনা, মিঠামইন ও অষ্টগ্রাম উপজেলার মধ্যে সারা বছর চলাচলের লক্ষ্যে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর কর্তৃক ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম সড়ক নির্মাণ প্রকল্প গৃহীত হয়।

রাষ্ট্রপতির হাত ধরেই শুভ সূচনা হয় এর নির্মাণ কাজের। ২০১৬ সালের ২১ এপ্রিল রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ আনুষ্ঠানিকভাবে ইটনা-মিঠামইন-অষ্টগ্রাম সড়ক প্রকল্পের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

এই বিভাগের আরো খবর
মন্তব্য
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: