ইমরান খানের প’দত্যা’গ দা’বিতে রাজপথে লা’খো মানুষ

প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প’দত্যা’গের দা’বিতে বি’ক্ষো’ভে উ’ত্তা’ল পাকিস্তান। পদ থেকে সড়ে দাঁড়াতে রোববার (১৮ অক্টোবর) করাচি শহরে ব্যাপক বি’ক্ষো’ভ প্রদর্শন করেন বি’রো’ধীদলীয় নেতা’কর্মীসহ লাখো মানুষ। আ’ন্দো’লনকারীদের দা’বি, ২০১৮ সালে নির্বাচনের মাধ্যমে সামরিক বা’হিনী তাকে অ’বৈ’ধভাবে ক্ষ’মতায় বসিয়েছে।

পাকিস্তানের প্রধান ৯টি বি’রো’ধীদলীয় জোট পাকিস্তান ডেমোক্র্যাটিক মুভমেন্ট পিডিএমের ডাকে রাজপথে জনতার ঢল নামে। বি’ক্ষো’ভে অংশ নেয়া তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের কন্যা মরিয়ম নওয়াজ অভিযোগ করেন বলেন, ‘আপনি ইমরান খান সাধারণ মানুষের চাকরি কে’ড়ে নিয়েছেন। মানুষের দু’বেলা যে খাবার পেত তা-ও নষ্ট করে দিয়েছেন। ক্ষু’ধার্ত অবস্থায় পার করছেন বহু মানুষ।’

এদিকে আ’ন্দোলনে অংশ নেয়া বিলাওয়াল ভুট্টো জানান, ‘আমাদের কৃষকরা কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। ঘরে অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন। আর বিষণ্ণতায় ডুবে আছে যুবসমাজ।’

করাচিতে সমাবেশ করার আগে গত শুক্রবার (১৬ অক্টোবর) দেশটির গুজরানওয়ালা শহরে সমাবেশ করে বিরোধীরা। ইমরান খান ‘ক্ষমতাগ্রহণের পর এটাই সবচেয়ে বড় কোনো সমাবেশ যেখানে তার পদত্যাগের দাবি করা হয় এবং তার সরকার নিয়ে কড়া সমালোচনা করা হয়।

বর্তমান সরকারের বি’রুদ্ধে দেশব্যাপী জনমত গড়ে তুলতে পাকিস্তানের ৯টি বি’রো’ধী দল নিয়ে একটি জোট গঠন করেছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। জোটের নাম দেয়া হয়েছে পাকিস্তান ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট (পিডিএম)।

দেশটির অর্থনীতিতে বর্তমানে দ্বিগুন মুদ্রাস্ফীতি ও নে’তিবা’চক প্রবৃদ্ধিসহ নানা অর্থনৈতিক সংকট চলছে। এর জন্য বি’রো’ধীরা বর্তমান সরকারকে এর জন্য দায়ী করে আসছে। ইমরান খানের এই দু’বছরের শাসনামলে সেন্সরশিপ বৃদ্ধি এবং ভিন্নমত, সমালোচক ও বি’রো’ধী নে’তাদের বি’রুদ্ধে চাপ প্রয়োগের বিষয়টি দৃশ্যমান হয়েছে বলে তারা দাবি করছে।

করাচির র‌্যালিতে অংশ নেয়া ৬৩ বছর বয়সী ফকীর বেলাউচ বলেন, ‘মুদ্রাস্ফীতি গরিব মানুষের কোমর ভে’ঙে দিয়েছে। অনেকে সন্তানের মুখে খাবার তুলে দিতে অন্যের কাছে হাত পাততে বাধ্য হচ্ছেন। এই সরকারের প’দত্যা’গ করার এটাই উ’পযু’ক্ত সময়।’ এ সময় “যাও ইমরান যাও” বলে বি’রো’ধী সমর্থকদের স্লোগান দিতে দেখা যায়।

পাকিস্তানে পরবর্তী সাধারণ নির্বাচন আগামী ২০২৩ সালে অনুষ্ঠিত হবে। এই নির্বাচনকে সামনে রেখে বি’রো’ধী সমর্থকরা বর্তমান সরকারের বি’রুদ্ধে বি’ক্ষো’ভ সমাবেশ করছেন।

সামরিক বা’হিনীর স’মালো’চনা করে মরিয়ম নওয়াজ বলেন, ‘আমাদের দল সামরিক বা’হিনীর শ’ত্রু নয় কিন্তু আপনি যদি মনে করেন যারা বুট দিয়ে জনগণের ভোট নষ্ট করে তাদের সম্মানিত করবেন তাহলে সেটা কখনোই হতে দেয়া হবে না।’

দিন দিন ইমরান খানের বি’রু’দ্ধে ক’ঠো’র অবস্থানে হাটছে বি’রো’ধী দলগুলো। এতে বেশ বি’পা’কে পড়তে পারেন ক্ষ”মতাসীন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

এই বিভাগের আরো খবর
মন্তব্য
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: