অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতার জন্য নিয়মিত যে ৮টি খাবার খাওয়া ভালো

অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতার জন্য: অগ্ন্যাশয় আমাদের পরিপাক তন্ত্রের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি অঙ্গ। এটি শুধু পাকস্থলীর অম্লীয় খাবারগুলোকে নিয়ন্ত্রণ এবং নিষ্ক্রিয় করে তা নয়, এর এনজাইম শর্করা, আমিষ এবং চর্বি জাতীয় খাবার হজমেও সাহায্য করে। একটি সুস্থ অগ্ন্যাশয় মানে দেহের শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রিত হওয়া এবং স্বাভাবিক পরিপাক প্রক্রিয়া সচল থাকা।

এই গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গটি সুস্থ রাখতে ‘দেহ’ খাবারের একটি তালিকা তৈরি করেছে। এই খাবারগুলো খেলে অগ্ন্যাশয় অবশ্যই আপনাকে ধন্যবাদ জানাবে। আসুন দেখে নেই তালিকাটি।

১. অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতার জন্য হলুদ

অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতার জন্য হলুদ ও দুধ

হলুদকে প্রাকৃতিক প্রদাহ বিরোধী উ

পাদান বলা হয়। এটি অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহজনিত ব্যথা সারিয়ে তোলে। শুধু তাই নয় এটি ইনসুলিন উৎপাদনেও অগ্ন্যাশয়কে উজ্জীবিত করে। এবং রক্তের সুগার লেভেল কমিয়ে ডায়াবেটিস প্রতিরোধ করে। নিয়মিত দুধ খেলে ঘুমের সমস্যাও দূর হয়।

২. রসুন অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতার জন্য অসাধারণ কাজ করে

অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতার জন্য রসুন ও মধু
© Depositphotos.com © Depositphotos.com

স্বাস্থ্য সচেতন ব্যক্তিরা খালি পেটে রসুন এবং মধু খেয়ে থাকেন। রসুন হলো প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক এবং বিভিন্ন খাবারের সাথে যুক্ত হয়ে তাদের পুষ্টিগুণ বাড়িয়ে দেয়। মধুর সাথে রসুন খেলে দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পায়। ফলে অগ্ন্যাশয়ের মতো দেহের অভ্যন্তরীণ অঙ্গ প্রত্যঙ্গগুলো সুস্থ থাকে।

৩. অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতার জন্য পালং শাকের জুড়ি নেই

অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতার জন্য পালং শাক
© Depositphotos.com

ভিটামিন বি এবং আয়রন সমৃদ্ধ পালং শাক আমাদের অগ্ন্যাশয় সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। এই শাকের আয়রন অগ্ন্যাশয়কে প্রদাহের হাত থেকে বাঁচায়। এবং এর ভিটামিন বি অগ্ন্যাশয়কে সতেজ রাখে। পালং শাকের ক্যানসার প্রতিরোধী উপাদান monogalactosyl diacylglycerol (MGDG) অগ্ন্যাশয়কে ক্যানসার থেকেও রক্ষা করে।

৪. ব্রকলি

অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতার জন্য ব্রকলি
© Depositphotos.com

ব্রকলি এবং অন্যান্য কপি জাতীয় সবজি যেমন, বাঁধাকপি, ফুলকপি ইত্যাদি তাদের ক্যানসার বিরোধী ক্ষমতার জন্য পরিচিত। এগুলো অগ্ন্যাশয়কে সুস্থ এবং রোগমুক্ত রাখে। এই সবজিগুলো ফ্লাভোনয়েডের মতো সহজে শোষণ হয় এমন উপকারি উপাদানে ভরপুর। ফ্লাভোনয়েড অগ্ন্যাশয়ের পাশাপাশি দেহের অন্যান্য অঙ্গকেও সুস্থ রাখে।

৫. লাল আঙুর অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতার জন্য অনেক উপকারি

অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতার জন্য লাল আঙুর
© Depositphotos.com

লাল আঙুরে রেসভারেট্রল নামক এক ধরণের ফেনলিক উপাদান পাওয়া যায়। রেসভারেট্রল যা শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসাবে পরিচিত। এই উপাদানটি অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহ দূর করে এবং অগ্ন্যাশয় ক্যানসারের জন্য দায়ী কোষ জন্মাতে বাঁধা দেয়। তাই ডাক্তাররা প্রতিদিন অল্প পরিমাণ হলেও লাল আঙুর খাওয়ার কথা বলেন।

৬. মিষ্টি আলু

অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতায় মিষ্টি আলু
© depositphotos

মিষ্টি আলু দেখতেও অনেকটা অগ্ন্যাশয়ের মতো। বলা হয় যে, এই আলু অগ্ন্যাশয়কে ৫০% ক্ষেত্রে ক্যানসারের হাত থেকে বাঁচায়। এটি মিষ্টি খাবার হওয়ায় স্বাভাবিক ভাভে এতে শর্করার উপস্থিতি রয়েছে। মিষ্টি আলু খাওয়ার পর ধীরে ধীরে রক্তের সাথে শর্করা বা চিনি মিশতে শুরু করে। ফলে রক্তে চিনির পরিমাণও নিয়ন্ত্রণ হয়।

৭. অরিগানো

অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতায় অরিগানো
© Depositphotos.com © Depositphotos.com

ফেনলিক অ্যান্টিঅক্সিডেন্টে ঠাঁসা অরিগানো ডায়াবেটিসের মতো রোগগুলোর চিকিৎসায় অসাধারণ কার্যকর। যদি রিপোর্ট সত্যি হয়, তাহলে অরিগানো অত্যন্ত শক্তিশালী অ্যান্টি-হাইপারগ্লাইসেমিক উপাদান এবং অগ্ন্যাশয়ের জন্য অবশ্যই তা ভালো।

৮. ড্যান্ডিলিয়ন

অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতায় ড্যান্ডিলিয়ন

নামটি অপরিচিত হলেও দেখে চেনা যায় এই হলুদ ফুলটি বাগানের আগাছার মধ্যে ফোটে। এর ঔষধিগুণ আবিষ্কারের পর সুপারস্টোরগুলোতে বিক্রি হতে দেখা যায়। ড্যান্ডিলিয়ন চা দেহের ক্ষতিকর উপাদান বের করে দিয়ে যকৃত এবং অগ্ন্যাশয়কে বিষমুক্ত রাখে। ড্যান্ডিলিয়ন গাছের শেকড়ের নির্যাস প্রবলভাবে ক্যানসার প্রতিরোধ করে।

বোনাস: অগ্ন্যাশয় সুস্থ রাখার টিপস

অগ্ন্যাশয়ের সুস্থতার টিপস
© Depositphotos.com © Depositphotos.com © Depositphotos.com © Depositphotos.com

– যাদের অগ্ন্যাশয় অসুস্থ অথবা অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহ রয়েছে তারা চর্বি এবং অন্যান্য প্রাকৃতিক উৎস থেকে প্রাপ্ত শক্তির মাত্র ৩০-৪০% গ্রহণ করতে পারে।

– অ্যালকোহল, প্যাকেটজাত খাবার এবং প্রক্রিয়াজাত শর্করা, যেগুলো অগ্ন্যাশয় থেকে নিঃসৃত ইনসুলিনের উপর নেতিবাচক ভূমিকা রাখে সেসব খাবার অবশ্যই এড়িয়ে চলতে হবে।

– প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করলে অগ্ন্যাশয় সংক্রান্ত রোগ যেমন অগ্ন্যাশয়ের প্রদাহ থেকে মুক্ত থাকা যায়, যা দেহে পানিস্বল্পতা সৃষ্টি করে।

উল্লেখিত তথ্যগুলো অগ্ন্যাশয় সম্পর্কে আপনার জ্ঞান বাড়িয়েছে না? যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের সাথে পোস্টটি শেয়ার করুন। আর অগ্ন্যাশয় সম্পর্কে যদি আরও তথ্যবহুল কিছু আপনার জানা থাকে তাহলে আমাদের জানাতে ভুলবেন না।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

এই বিভাগের আরো খবর
মন্তব্য
Loading...

This website uses cookies to improve your experience. We'll assume you're ok with this, but you can opt-out if you wish. Accept Read More

%d bloggers like this: